এলআইসি বাংলাদেশের নাম ভাঙিয়ে প্রতারণা

সময়: মঙ্গলবার, জানুয়ারি ২১, ২০২০ ১২:০৯:২১ পূর্বাহ্ণ


অনুপ সর্বজ্ঞ : বাংলাদেশ সরকার অনুমোদিত এলআইসি কোম্পানি লিমিটেডের কার্যক্রম পরিচালনার জন্য কিছু সংখ্যক পুরুষ-মহিলা ও ছাত্র-ছাত্রী নিয়োগ দেয়া হবে। পার্ট টাইম কাজেরও সুযোগ রয়েছে। শুধু লিখিত পরীক্ষার জন্য দিতে হবে একশো টাকা ও লিখিত পরীক্ষায় টিকে গেলে ইন্টারভিউয়ের জন্য নেয়া হবে চৌদ্দশো টাকা। কিন্তু এ ধরনের কোন কর্মসূচি নেই ভারত-বাংলাদেশ যৌথ মালিকানাধীন বীমা প্রতিষ্ঠান লাইফ ইন্স্যুরেন্স করপোরেশন (এলআইসি) অব বাংলাদেশ লিমিটেডের।

গাজিপুর, কুমিল্লা, দিনাজপুর ও রংপুরের বিভিন্ন গণপরিবহন ও অলিগলিতে ঝুলছে এ ধরনের বিজ্ঞাপন। যোগাযোগের জন্য দেয়া হয়েছে সেলফোন নম্বর। বিষয়টিকে প্রতারক চক্রের অপকর্ম হিসেবে উল্লেখ করে সম্প্রতি ইন্স্যুরেন্স ডেভলপমেন্ট অ্যান্ড রেগুলেটরি অথরিটি বরাবর লিখিত অভিযোগ করেছে এলআইসি বাংলাদেশ লিমিটেড। অভিযোগের সঙ্গে এ ধরনের একটি ভুয়া নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিও প্রমাণ হিসেবে দিয়েছে যৌথ মালিকানাধীন এ বীমা কোম্পানিটি।

এলআইসি বাংলাদেশের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) অরুপ দাসগুপ্তা দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিনকে বলেন, এটা কোন প্রতারক চক্রের কাজ। আমরা এভাবে লোকবল নিয়োগ দেইনা। বিষয়টি নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষকে জানানো হয়েছে।

প্রমাণ হিসেবে আইডিআরএ’তে দেয়া ওই ভুয়া নিয়োগ বিজ্ঞপ্তিতে যোগাযোগের ঠিকানা দেয়া হয়েছে গাজীপুর চৌরাস্তা। প্রয়োজনে মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করতে বলা হয়েছে। এতে ব্রাঞ্চম্যানেজারের বেতন ধরা হয়েছে ষোল হাজার পাঁচশো টাকা, ইউনিট ম্যানেজারের ১৩ হাজার ৫০০, সহকারী ম্যানেজারের ১০ হাজার ৫০০ থেকে ১৫ হাজার ৫০০ টাকা ও পিয়নের বেতন ধরা হয়েছে আলোচনা সাপেক্ষে ৮ হাজার ৫০০ থেকে ১২ হাজার ৩০০ টাকা। তবে বিজ্ঞাপনে দেয়া ফোন নাম্বারে একাধিকবার যোগাযোগ করেও কাউকে পাওয়া যায়নি।

এ প্রসঙ্গে আইডিআরএ’র সদস্য গকুল চাঁদ দাস দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিনকে বলেন, এ ধরনের প্রাতারণা ফৌজদারী অপরাধের মধ্যে পরে। আমরা এলআইসি বাংলাদেশকে বলেছি দোষিদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থায় যেতে। তা না হলে প্রতিষ্ঠানটির পাশাপাশি পুরো বীমা খাতই ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

ভারতের রাষ্ট্রায়ত্ব জীবন বীমা কোম্পানি লাইফ ইনস্যুরেন্স কর্পোরেশন (আইএলসি) ২০১৬ সালের অক্টোবরে বাংলাদেশে যৌথ অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে তাদের কার্যক্রম শুরু করে। স্থানীয় অংশীদার স্ট্র্যাটেজিক ইক্যুইটি ম্যানেজমেন্ট লিমিটেড বা এসইএমএল গ্রুপ ও মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের সঙ্গে যৌথ মালিকানায় আইএলসি বাংলাদেশ নামে এদেশের বীমা বাজারে এরই মধ্যে নিজেদের একটি অবস্থান তৈরি করে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। যৌথ মালিকানাধীন এই কোম্পানিতে মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংকের ৩ শতাংশ এবং এসইএমএল গ্রুপের ৭ শতাংশ শেয়ার রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দেশে শিক্ষার হার বাড়ছে, কিন্তু সে হারে কর্মসংস্থানের সুযোগ সৃষ্টি হচ্ছে না। বাড়ছে না কর্মক্ষেত্র। ফলে অনেকেই বেকার থেকে যাচ্ছে। চাকরি যেন ‘সোনার হরিণ’ হয়ে দাঁড়িয়েছে। পড়ালেখা শেষ হলেও জুটছে না কাঙ্খিত চাকরি। শিক্ষিত বেকাররা চাকরির সন্ধানে ভিড় করছেন শহরে। এ সুযোগে এক শ্রেণীর প্রতারক চাকরি দেয়ার নামে প্রতারণার ফাঁদ পেতে বসে আছে। এই ফাঁদে পড়ে অনেকেই প্রতারিত হচ্ছেন। এতে অনেকে চাকরি পাওয়ার আসায় উপরি দিতে গিয়ে সর্বস্বান্ত হচ্ছেন। বিশেষ করে ব্যাংক, বীমা, এমএলএম কোম্পানি, বিপণন কোম্পানি, মার্কেটিং কোম্পানির নামে বেশি প্রতারণা হচ্ছে। রাজধানীর বিভিন্ন বাসে, জনসমাগম হয় এমন স্থানে চাকরির আকর্ষণীয় বিজ্ঞাপন দেয়া হয়। এতে পার্ট টাইম চাকরির নামে ছাত্রছাত্রীদের প্রতারণার ফাঁদে ফেলা হয়। নিয়োগের নামে তাদের কাছ থেকে জামানত বা অন্যান্য খাতের অর্থ নিয়ে সটকে পড়ে প্রতারকরা।
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৪৪০ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged