editorial

রাজস্ব লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে কঠোর অবস্থানে অর্থমন্ত্রী

করযোগ্য ব্যক্তিদের করের আওতায় আনতে তাগিদ, অন্যথায় ব্যবস্থা

সময়: মঙ্গলবার, অক্টোবর ১৫, ২০১৯ ৬:১৩:০০ অপরাহ্ণ


বাজেটে ঘোষিত লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আদায় অর্জিত হচ্ছে না গত কয়েক বছর ধরেই। ফলে বাজেট বাস্তবায়নে প্রতিবছর সরকারের অভ্যন্তরীণ ঋণ বেড়ে যাচ্ছে। এমতাবস্থায়, চলতি অর্থবছরে বাজেটে ঘোষিত লক্ষ্যমাত্রা অনুযায়ী রাজস্ব আদায়ের জন্য জাতীয় রাজস্ব বোর্ড (এনবিআর) কর্মকর্তাদের কড়া নির্দেশ দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল। গত রোববার এনবিআর কার্যালয়ে রাজস্ব বোর্ডের সর্বস্তরের কর্মকর্তাদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত এক মতবিনিময় সভায় তিনি এ নির্দেশ দেন।
ওই সভায় অর্থমন্ত্রী বলেছেন, বাজেটের প্রতিটি দাঁড়ি-কমা পালন করতে হবে। এ বছর কোনো প্রতিষ্ঠান বা গোষ্ঠীকে কর ছাড় দেয়া হবে না। এজন্য এনবিআর-কে কোনো এসআরও জারি করতেও নিষেধ করেছেন তিনি। যদি বিশেষ কোনো সিদ্ধান্ত নিতে হয়, সেক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রীর সম্মতি নিয়ে করতে হবে। এর বাইরে কোনো ছাড় নয়।
তিনি আরও বলেন, এ বছর কোনো ঘাটতি মেনে নেয়া হবে না। গত অর্থবছরে ৫৫ হাজার কোটি টাকা ঘাটতি ছিল। এটা সহজ কোনো বিষয় নয়। এনবিআর-কে চলতি অর্থবছরের লক্ষ্যমাত্রা পূরণের পাশাপাশি গত অর্থবছরের ঘাটতিও সমন্বয়ের চেষ্টা করতে হবে। আর রাজস্ব আদায়ের লক্ষ্যমাত্রা থেকে কত আদায় হয়েছে, এটি বলতে হবে। শতাংশ হিসেব দিয়ে বললে হবে না। শতাংশের হিসাব জনগণ বুঝে না।

আয়কর কর্মকর্তাদের উদ্দেশ্যে অর্থমন্ত্রী বলেন, দেশে ৪ কোটি লোকের আয়কর দেয়ার সক্ষমতা রয়েছে। অথচ মাত্র ৪৪ লাখ লোকের কর সনাক্তকরণ নম্বর (টিআইএন) আছে। সবার কাছে পৌঁছাতে হবে। প্রয়োজনে এক লাখ লোক নিয়োগ দেয়া হবে। তবুও সবাইকে করের আওতায় আনতে হবে। যারা আয়কর দেয়ার যোগ্যতা রাখে, তারা আয়কর না দিলে ব্যবস্থা নিতে হবে। অন্যদিকে ব্যবসায়ীরা যথাযথ কর দেন না। ধনীরা বিদেশ গিয়ে যে টাকা শপিং করে খরচ করেন, তার ১০ শতাংশ কর দিলেও সরকার উপকৃত হয়।

Share
নিউজটি ৩৫৮ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged