স্ব-শাসিত সংস্থার উদ্বৃত্ত অর্থ প্রসঙ্গে অর্থমন্ত্রী

‘কোনো ব্যাংক থেকে টাকা নেয়া হবে না’

সময়: বৃহস্পতিবার, সেপ্টেম্বর ৫, ২০১৯ ১২:৩৫:৫৩ অপরাহ্ণ


বিশেষ প্রতিনিধি : অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, সরকারি সংস্থাগুলোর উদ্বৃত্ত টাকা রাষ্ট্রীয় কোষাগারে জমা দেয়া হলে ব্যাংকগুলোতে কোনো তারল্য সংকট হবে না। অর্থ মন্ত্রণালয়ের কোন ব্যাংক নাই, অফিসে স্যুটকেসও নেই; টাকা এনে কোথায় রাখব। কোনো ব্যাংক থেকে টাকা নেয়া হবে না, ফলে কোন ব্যাংকের লিকুইডিটি (তারল্য) সংকট হবে না। ডিপোজিট যেগুলো কন্টিনিউ আছে, তা ভাঙা হবে না। আমাদের শুধু জানাতে হবে, যে এখানে তাদের ডিপোজিট আছে।
গতকাল বুধবার সচিবালয়ে ‘অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’র বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।
অর্থমন্ত্রী বলেন, রাষ্ট্রীয় কোষাগারের মাধ্যমে রাষ্ট্রের সকল জমার বিষয়টি আমাদের সাংবিধানিক চাহিদা। আমরা লক্ষ্য করেছি যে,সরকার বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান করে, সরকার থেকে টাকা নিয়ে প্রতিষ্ঠানটি প্রতিষ্ঠিত হয়। কিন্তু প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর তারা মনে করে যে, এটা তাদের টাকা। তখন তারা সেই টাকা সৎভাবে ব্যবহার করে না। মিটিংয়ের নাম করে বিভিন্ন অনিয়ম করে থাকে।
তিনি বলেন, সরকার মালিক হলে সরকার কি দাবি করতে পারে না যে, আমাদের টাকা কীভাবে খরচ করবে Ñসেটা আমাদের জানা দরকার। তাদের বিভিন্ন রকমের বিনিয়োগ রয়েছে। কেউ বিনিয়োগ করেছে, সেটি মাঝ পথে থাকলে আমরা তা নিয়ে আসতে পারব না।
প্রসঙ্গক্রমে তিনি আরও বলেন, আমরা দেখেছি, এনবিআর যেহেতু রাজস্ব আহরণ করে, তারা মনে করে যে এটা তাদের হক, তারা সে টাকা খরচ করবে। তারা একনেকের অনুমোদন নেয় না, প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন নেয় না। এমনকী কোন কমিটির অনুমোদন না নিয়েই বিরাট বিরাট ভবন নির্মাণ শুরু করে দেয়। এভাবে কি চলতে পারে? সেজন্য এটি করা হচ্ছে। এতে আমাদের অর্থনীতি শক্তিশালী হবে। তাদের কাছে যথেষ্ট টাকা রাখা হচ্ছে, তাদের কাছে কোন প্রজেক্ট থাকলে সেজন্যও তারা টাকা রাখতে পারবে। তাদের যে টাকা এ মুহূর্তে দরকার নাই, সে টাকা আমরা সরকারি কোষাগারে নিয়ে আসছি। এখানে সমন্বিতভাবে রাষ্ট্রীয় সম্পত্তি সঠিকভাবে ব্যবহার করা গেলে অনেক বেশি সফলতা পাওয়া যায়। সেজন্য আমরা এটি করতে চাইছি। আমরা অর্থনৈতিক খাতে ডিসিপ্লিন আনতে চাই। এটা ভেঙে গেলে সরকারি আর্থিক ব্যবস্থাপনা দুর্বল হয়ে যাবে।
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৪১৪ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged