editorial

চাঙ্গা অবস্থায় এশিয়ার শেয়ারবাজার, স্থানীয় বাজরেও ইতিবাচক গতি প্রত্যাশিত

সময়: রবিবার, ডিসেম্বর ২৯, ২০১৯ ১০:৩৪:১৪ পূর্বাহ্ণ


অনেকেটা হঠাৎ করেই এশিয়ার বেশির ভাগ শেয়ারবাজার চাঙ্গা হয়ে উঠেছে। আর এই চাঙ্গাভাবের মূল কারণ হচ্ছে চীন-মার্কিন চলমান বাণিজ্য যুদ্ধ। ইতোমধ্যেই এই দু’টি অর্থনৈতিক শক্তির মধ্যে সমঝোতামূলক বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদিত হবার সম্ভাবনা উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে। পর্যবেক্ষক মহল মনে করছেন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র তার নিজস্ব অর্থনৈতিক ন্বার্থেই খুব শিগগিরই চীনের সঙ্গে বাণিজ্য চুক্তি সম্পাদন করবে। এ চুক্তি স্বাক্ষরিত হলে বিশ্বব্যাপী যে অর্থনৈতিক মন্দার সূত্রপাত হয়েছে তা বিদূরিত হবে। এতে শুধু চীন আর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অর্থনৈতিক মন্থরতা কেটে যাবে তা নয় সারা বিশ্ব অর্থনীতিতেই এর প্রভাব পড়বে। উল্লেখ্য, চীন-মার্কিন চলমান বাণিজ্য যুদ্ধের কারণে বিশ্বের অধিকাংশ দেশের অর্থনীতিই বর্তমানে বিপর্যস্ত অবস্থার মধ্যে রয়েছে। আগামী দিনগুলোতে এই অর্থনৈতিক মন্দাবস্থা আরো তীব্রতর হতে পারে বলে বিশেষজ্ঞগণ শঙ্কা প্রকাশ করছেন। তারা এ সম্ভাব্য অর্থনৈতিক মন্দাকে গত শতাব্দির ‘৩০ এর দশকের ভয়াবহ অর্থনৈতিক মন্দার সঙ্গে তুলনা করছেন। ২০১৯ সালে বিশ্ব অর্থনীতিতে প্রবৃদ্ধির হার অনেকটাই শ্লথ হয়ে পড়েছে। আগামী বছর এই অর্থনৈতিক মন্থরতা আরো ঘনিভূত হতে পারে। এ অবস্থায় চীন-মার্কিন সম্ভাব্য বাণিজ্য চুক্তি বিশ্ববাসীর মনে আশার সঞ্চার করেছে। যার প্রভাব লক্ষ্য করা যাচ্ছে এশিয়াসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশের শেয়ারবাজারে। বড় দিনের ছুটির পর এশিয়ার শেয়ারবাজারের অবস্থা গত ১৮ মাসের মধ্যে সবচেয়ে চাঙ্গা অবস্থায় ছিল। এর আগে অর্থাৎ বৃহস্পতিবার ওয়াল স্টিটের ওয়াল প্রধান সূচকগুলো রেকর্ড উচ্চতায় উন্নীত হয়। জাপান বাদে এশিয়া-প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের বিস্তৃত এমএসসিআই সূচক দশমিক ৫৫ শতাংশ বেড়ে ৫৫৫ দশমিক ২৫ পয়েন্টে দাঁড়ায়, যা ২০১৮ সালের মাঝামাঝি সময়ের পর সর্বোচ্চ। চীন-মার্কিন বাণিজ্য চুক্তির প্রভাবেই বিশ্ব শেয়ারবাজারের এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। সম্ভাব্য চুক্তি স্বাক্ষরিত হলে তা বিশ্ববাসীর জন্য একটি বিশেষ সুসংবাদ হিসেবে বিবেচিত হবে এবং বিশ্ব অর্থনীতিতে সুবাতাস বইয়ে দেবে।
চীন-মার্কিন সম্ভাব্য বাণিজ্য চুক্তির খবরে আন্তর্জাতিক শেয়ারবাজারে গতিশীলতা সৃষ্টি হয়েছে। এর প্রভাব নিশ্চিতভাবেই আমাদের স্থানীয় শেয়ারবাজারেও পড়বে। সাম্প্রতিক সময়ে দেশের শেয়ারবাজারে এক ধরনের মন্থরতা দেখা দিয়েছে, যা নিয়ে পর্যবেক্ষক মহল কিছুটা হলেও উদ্বিগ্ন। কিন্তু এ মন্দাবস্থা বেশি দিন স্থায়ী হবে না বলেই মনে হচ্ছে। কাজেই শেয়ারবাজারে বিনিয়োগকারীদের হতাশ বা উদ্বিগ্ন হবার কিছু নেই। আগামী কিছু দিনের মধ্যেই হয়তো স্থানীয় শেয়ারবাজার আবারো চাঙ্গা হয়ে উঠবে। আমরা সেই প্রত্যাশায় রইলাম।

Share
নিউজটি ৩২৩ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged