ডিএসই চত্বরে মানববন্ধন : স্থিতিশীল বাজার চান বিনিয়োগকারীরা

সময়: সোমবার, জুলাই ১৫, ২০১৯ ৫:০০:২০ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের উভয় শেয়ারবাজারে টানা পতনের প্রতিবাদে গতকাল রোববার মানববন্ধন করেছেন বিনিয়োগকারীরা। এদিন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সামনে দুপুর ২টা থেকে ৩টা পর্যন্ত ‘বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ’ এর ব্যানারে বিনিয়োগকারীরা এ মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন।
মানববন্ধন চলাকালে বাংলাদেশ পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজান উর রশিদ বলেন, ‘বাজারের চলমান দুরবস্থা কাটাতে আমরা আন্দোলন করছি। আমরা স্থিতিশীল শেয়ারবাজার চাই। সোমবার (আজ) একই সময় আমরা ডিএসই’র সামনে আবারো একযোগে আন্দোলন করব। বাজার ঠিক না হওয়া পর্যন্ত এ আন্দোলন চলবে।’
এ সময় বিনিয়োগকারীরা জানান, চলতি বছরের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত শেয়ারবাজারে পতন অব্যাহত রয়েছে। শুরু থেকেই আমরা শেয়ারবাজারের পতন ঠেকাতে বিক্ষোভ ও মানববন্ধন করে আসছি। কিন্তু এতেও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোনো ভূমিকা দেখা যায়নি। কেউই আমাদের দিকে নজর দিচ্ছে না। আমরা এখানে ব্যক্তিগত স্বার্থে বিক্ষোভ করছি না। আমরা যা করছি তা, শেয়ারবাজারের স্বার্থে তথা দেশের অর্থনীতির স্বার্থে।
শেয়ারবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) দৃষ্টি আকর্ষণ করে বিনিয়োগকারীরা জানান, শেয়ারবাজারে স্থিতিশীলতা আনয়নে চলমান অস্থিরতা দূর করার কোনো বিকল্প নেই। তাই বিনিয়োগকারীদের কথা ভেবে বিএসইসি’র কর্মকর্তারা যদি আন্তরিকতার সঙ্গে কাজ করেন তাহলে এ পরিস্থিতি থেকে উত্তরণ সম্ভব।
বাজেট শেয়ারবাজারবান্ধব হয়েছে জানিয়ে একজন বিনিয়োগকারী জানান, ঊর্ধ্বমুখী বাজারের স্বার্থে বাজেটে উল্লেখযোগ্য পদক্ষেপ নিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। কোম্পানির নগদ লভ্যাংশ থেকে বেশি বোনাস শেয়ার ঘোষণা করলে, তার ওপরে ১০ শতাংশ হারে কর এবং মুনাফার ৭০ শতাংশের বেশি রিটেইন আর্নিংস বা রিজার্ভ রাখলে, তার উপরে ১০ শতাংশ হারে কর, এই দুই পদক্ষেপই বিনিয়োগকারীদের পক্ষে হয়েছে। আমরা এর সাধুবাদ জানাই।
বিনিয়োগকারীরা আরো জানান, মানববন্ধন করা নিয়ে বিনিয়োগকারীদের অনেক চাপের মুখে পড়তে হয়। আমাদের নানানভাবে বাধা দেয়া হয়। রোজার আগেও আমরা বিক্ষোভ করেছি। বিনিয়োগকারীরা সিদ্ধান্ত নিয়েছে, যতক্ষণ পর্যন্ত বাজারে স্থিতিশীলতা ফিরে আসবে না, ততক্ষণ পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়া হবে।

Share
নিউজটি ২৮৪ বার পড়া হয়েছে ।