ডিএসই-তে রিং সাইনের লেনদেন চালুর সিদ্ধান্ত

সময়: মঙ্গলবার, নভেম্বর ১৯, ২০১৯ ৯:৩৭:৫৯ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : সম্প্রতি প্রাথমিক গণপ্রস্তাবের মাধ্যমে অর্থ উত্তোলনকারী প্রতিষ্ঠান ‘রিং শাইন টেক্সটাইল লিমিটেড’-কে তালিকাভুক্ত করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) পরিচালনা পর্ষদ। গতকাল সোমবার অনুষ্ঠিত পর্ষদের সভায় বিষয়টি অনুমোদন করা হয়। ডিএসই সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।
সূত্রে জানা গেছে, কোম্পানিটির প্লেসমেন্ট শেয়ার নিয়ে যে বির্তক সৃষ্টি হয়েছিল; তা এখন সামাধান হয়ে গেছে। পাশাপাশি বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) কোম্পানিটির ওই প্লেসমেন্ট শেয়ারের লক-ইন এর মেয়াদ বাড়িয়ে দিয়েছে। এতে কোম্পানিটির লেনদেনে আর কোনো বাধা রইলো না। এখন ডিএসইর ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ কোম্পানিটির শেয়ার লেনদেনের তারিখ নির্ধারণ করবে।
প্রসঙ্গত বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) ৬৭৯তম সভায় রিং সাইন টেক্সটাইলের আইপিও অনুমোদন দেয়। কোম্পানিটি পুঁজিবাজারে অভিহিত মূল্যে ১৫ কোটি শেয়ার ছেড়ে ১৫০ কোটি টাকা উত্তোলন করবে। উত্তোলিত অর্থ দিয়ে কোম্পানিটি যন্ত্রপাতি ও কলকব্জা ক্রয়, ঋণ পরিশোধ এবং আইপিও খরচ খাতে ব্যয় করবে। এর মধ্যে মেশিনারিজ আমদানিতে খরচ হবে ৯৬ কোটি ৪০ লাখ টাকা। ঋণ পরিশোধ করা হবে ৫০ কোটি টাকা। আর আইপিও বাবদ খরচ হবে ৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা।
কোম্পানিটির প্রথম প্রান্তিকে (জুলাই, ১৮ -সেপ্টেম্বর,১৮) শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) দাঁড়িয়েছে ১৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে শেয়ারপ্রতি লোকসান ছিল ১২ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি প্রকৃত সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে (এনএভি) ১০ টাকা ৬১ পয়সা।
৩০ জুন, ২০১৮ সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৯৯ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ১ টাকা ৮৪ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানির শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য দাঁড়িয়েছে ২৩ টাকা ১৭ পয়সা। আলোচ্য সময়ে কোম্পানি নিট মুনাফার পরিমাণ ছিল ৫৫ কোটি ৪২ লাখ টাকা।
কোম্পানির অনুমোদিত মূলধন ৪৪০ কোটি টাকা। আইপিও শেয়ার বাদে পরিশোধিত মূলধন ২৮৫ কোটি ৫ লাখ টাকা। আর আইপিও শেয়ার ধরে পরিশোধিত মূলধন ৪৩৫ কোটি ৫ লাখ টাকা। প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য হবে ১০ টাকা।
কোম্পানির মোট শেয়ার সংখ্যা ৪৩ কোটি ৫০ লাখ ৫৪ হাজার ৮২০টি। এর মধ্যে আইপিও শেয়ার ১৫ কোটি, প্লেসমেন্ট/ অল্টারনেটিভ ফান্ডের শেয়ার ১৪ কোটি ৭৮ লাখ ২০ হাজার ৬০০টি এবং উদ্যোক্তা পরিচালকের শেয়ার ১৩ কোটি ৭২ লাখ ৩৪ হাজার ২২০টি।
কোম্পানিটি ১৯৯৭ সালের ২৮ ডিসেম্বর একটি প্রাইভেট প্রতিষ্ঠান হিসেবে যাত্রা শুরু করে। ২০১৭ সালের ৮ জুন কোম্পানিটি পাবলিক লিমিটেডে রূপান্তর হয়। আর ১৯৯৮ সালের আগস্ট মাসে বাণিজ্যিকভাবে যাত্রা শুরু হয় কোম্পানিটির।
কোম্পানিটি মূলত ধূসর রঙের সুতা উৎপাদন ও বিপননের সঙ্গে জড়িত। বিভ্ন্নি ধরণের প্রোডাক্ট দেশের গার্মেন্টস শিল্পের জন্য উৎপাদন করে থাকে। কোম্পানিটি মূলত ইয়ার্ন ও ফেব্রিক্স উৎপাদন করে গার্মেন্টস শিল্পের ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ হিসেবে কাজ করে। দেশে টেক্সটাইল ও ডাইং প্রতিষ্ঠানগুলোর অনেক বশি চাহিদা রয়েছে। চাহিদা পূরণে বিদেশ থেকে আমদানি করতে হয়। তাই এই খাতের প্রবৃদ্ধিকে কাজে লাগাতে চায় রিং সাইন টেক্সটাইল।
কোম্পানিটিকে বাজারে আনতে ইস্যু ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে নিয়োজিত রয়েছে এএফসি ক্যাপিটাল লিমিটেড এবং সিএপিএম অ্যাডভাইজরি লিমিটেড।
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩৩২ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged