তিন স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগের সিদ্ধান্ত জাহিনটেক্সে

সময়: Tuesday, January 4th, 2022 2:31:25 pm


নিজস্ব প্রতিবেদক: নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত বস্ত্র খাতের কোম্পানি জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ।

কোম্পানিটির আর্থিক অবস্থার উন্নয়ন ও সক্ষমতা বাড়ানোর উদ্যোগের সার্থে কোম্পানির কর্তৃপক্ষের সঙ্গে আলোচনা সাপেক্ষে এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে কমিশন। গত তিন বছর ধরে ডিভিডেন্ড না দেওয়া ও আর্থিক অবস্থার ধারাবাহিক অবনতির কারণে এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএসইসি।

সম্প্রতি বিএসইসি থেকে জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালকের কাছে এই সংক্রান্ত একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে। এছাড়াও বিষয়টি ঢাকা ও চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই-সিএসই) ব্যবস্থাপনা পরিচালককে জানানো হয়েছে।
জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালনা পর্ষদে নিয়োগ পাওয়া স্বতন্ত্র পরিচালকদের মধ্যে রয়েছেন মেজর আব্দুল কুদ্দুস মজুমদার, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক সেরিনা বানু এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যাংকিং ও ইন্স্যুরেন্স বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মো. নাজমুল হাসান।

বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগ দেওয়ার পর জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবসায়িক কার্যক্রম পরিচালনা, আর্থিক কর্মকাণ্ড ও আর্থিক অবস্থার কোনো উন্নতি হয়েছে কি না, তা যাচাই করবে বিএসইসি।
বিএসইসি’র চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে, গত বছরের ৫ ডিসেম্বর বিএসইসি’র সঙ্গে জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের বৈঠক হয়। ওই বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের পরিচালনা পর্ষদে তিন ব্যক্তিকে স্বতন্ত্র পরিচালক হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য পরামর্শ দেওয়া হলো।

এছাড়া, কোম্পানিটির স্বতন্ত্র পরিচালক খতিব মাহাবুব আক্তার রুবেলকে তার পদ থেকে অপসারণের পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে। কারণ, স্বতন্ত্র পরিচালকের স্বাধীনতা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ অর্ডিন্যান্স, ১৯৬৯ এর ধারা ২সিসি এর অধীনে জারি করা করপোরেট গভর্নেন্স কোডের সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

তথ্য মতে, গত ৫ ডিসেম্বর জাহিনটেক্সের সঙ্গে বিএসইসির বৈঠকে শেয়ারহোল্ডারদের জন্য কোনো ডিভিডেন্ড ঘোষণা না করায় হতাশা প্রকাশ করা হয়। গত পাঁচ বছরে জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের টার্নওভারে নেতিবাচক প্রবণতা এবং গত দুই বছরে কোম্পানিটির ইপিএসে ঋণাত্মক প্রবণতার বিষয় জানিয়েছে কমিশন। কোম্পানিটির পরিচালনা পর্ষদ বিপুল পরিমাণ তহবিল সরবরাহকারী সাধারণ বিনিয়োগকারীর কথা ভাবছে না বলেও জানায় কমিশন।

প্রসঙ্গত, শেয়ারবাজারে জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজ তালিকাভুক্ত হয় ২০১১ সালে। ‘বি’ক্যাটাগরির কোম্পানিটির পরিশোধিত মূলধন ৮১ কোটি ৮২ লাখ ৯০ হাজার টাকা। কোম্পানিটির মোট শেয়ার সংখ্যা ৮ কোটি ১৮ লাখ ২৮ হাজার ৫৪৯টি। এর মধ্যে কোম্পানিটির উদ্যোক্তা পরিচালকদের ৩৬.৯৪ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের ২২.২৩ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের ৪০.৮৩ শতাংশ শেয়ার আছে। ২০১৯ থেকে ২০২১ সালের ৩০ জুন পর্যন্ত টানা তিন বছর সমাপ্ত হিসাব বছরে শেয়ারহোল্ডারদের জন্য ডিভিডেন্ড দেয়নি জাহিনটেক্সের পরিচালনা পর্ষদ। সর্বশেষ সমাপ্ত হিসাব বছরে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৩ টাকা ০১ পয়সায়। কোম্পানিটির বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) গত ২৬ ডিসেম্বর হয়। সোমবার (২০ ডিসেম্বর) ডিএসইতে জাহিনটেক্স ইন্ডাস্ট্রিজের শেয়ার সর্বশেষ ৭ টাকা ৩০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে।

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

নিউজটি ৮৫ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged