editorial

নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানের জন্য বিশেষ ফান্ড

সময়: Monday, March 9th, 2020 11:21:43 am


শেয়ারবাজারে তারল্য সঙ্কট নিরসনের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংক দেশের সিডিউল ব্যাংকগুলোর বিশেষ তহবিল গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে। এই উদ্যোগের অংশ হিসেবে প্রত্যেকটি ব্যাংককে ২০০ কোটি টাকার বিশেষ তহবিল গঠনের ব্যবস্থা করা হয়েছে। এতে ব্যাংকগুলো যে তহবিল গঠন করবে তার আকার হবে ১২ হাজার ৮০০ কোটি টাকা। উল্লেখ্য, শেয়ারবাজার সংশ্লিষ্টগণ তারল্য প্রবাহ বৃদ্ধির জন্য ১০ হাজার কোটি টাকার তহবিল চেয়েছিল। কিন্তু বাংলাদেশ ব্যাংক যে বিশেষ তহবিল গঠনের সুযোগ করে দিয়েছে তা দাবীকৃত অর্থের চেয়ে ২ হাজার ৮০০ কোটি টাকা বেশি। কিন্তু দেশের নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে এই বিশেষ তহবিলের বাইরে রাখা হয়েছে। ফলে একই যাত্রায় দুই ফল লাভের মতো হয়েছে ব্যাপারটি। কারণ ব্যাংকিং সেক্টর যেমন দেশের অর্থনীতি ও পুঁজি বাজারে অবদান রাখছে ঠিক তেমনি নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোও দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে বিরাট অবদান রেখে চলেছে। বিশেষ করে শেয়ারবাজারে নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর চমৎকার অবদান রয়েছে। কিন্তু সাম্প্রতিক সময়ে পিপলস লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড এবং ইন্টারন্যাশনাল লিজিং অ্যান্ড ফিন্যান্সিয়াল সার্ভিসেস লিমিটেড এর সংকটের কারণে পুরো সিস্টেমের উপর সাধারণ মানুষের আস্থা অনেকটাই হ্রাস পেয়েছে অনেকেই মনে করছেন, নন-ব্যাংক ফিন্যান্সিয়াল প্রতিষ্ঠানগুলোর ভবিষ্যৎ খুব একটা ভালো নয়। তাই আমানতকারিদের অনেকেই তাদের আমানতকৃত অর্থ তুলে নিয়ে যাচ্ছেন। নতুন করে আমানতের হারও অনেকটাই হ্রাস পেয়েছে। ফলে নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো তারল্য সঙ্কটে পতিত হবার আশঙ্কা প্রবল হয়ে উঠেছে। এই অবস্থায় প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য তারল্য সরবরাহ করার খুবই প্রয়োজন। নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর নির্বাহী প্রধানদের সংগঠন বাংলাদেশ লিজিং অ্যান্ড ফাইন্যান্স কোম্পানিজ অ্যাসোসিয়েশনের একটি প্রতিনিধি দল সম্প্রতি বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন। বাংলাদেশ ব্যাংক কর্তৃপক্ষ তাদের এ মর্মে আশ^স্ত করেছে যে, অচিরেই নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্যও বিশেষ তহবিল গঠন করা হবে। একটি সূত্র মতে, দেশে বর্তমানে ৩৪টি নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠান আছে। এদের মধ্যে ৬টি প্রতিষ্ঠানের অবস্থা খুবই খারাপ। এদের কারণে অন্য প্রতিষ্ঠানগুলোও বিপাকে পড়েছে। সঙ্কটে থাকা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে সংস্কার করা হবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে সংস্কার বিষয়ক একটি প্রতিবেদন প্রদানের জন্য অ্যাসোসিয়েশণ নেতৃবৃন্দকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এই প্রতিবেদন পেলেই সক্টটে থাকা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে সংস্কারের উদ্যোগ নেয়া হবে। একই স্েঙ্গ এই খাতের আর্থিক অবস্থা বিশেষ করে তারল্য সঙ্কট নিরসনের জন্য বিশেষ তহবিল গঠন করা হতে পারে। এই বিশেষ তহবিল পেলে আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের কার্যক্রম জোরদার করতে পারবে।

নিউজটি ২৭৪ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged