পাওয়ার গ্রিডের পরিশোধিত মূলধন বৃদ্ধির অনুমোদন

সময়: বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৮, ২০১৯ ১০:৫৫:৫৪ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ‘পাওয়ার গ্রিড’-এর ২৫১ কোটি ৮১ লাখ ৪০ হাজার টাকার শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে পরিশোধিত মূলধন বৃদ্ধির অনুমোদন দিয়েছে নিয়ন্ত্রক সংস্থা ‘বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন’ (বিএসইসি)। কমিশনের ৭০৮তম নিয়মিত সভায় এ অনুমোদন দেয়া হয়।
গতকাল বুধবার বিএসইসির নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান সাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানা গেছে।
পাওয়ার গ্রিড প্রতিটি শেয়ার ১০ টাকা মূল্যে মোট ২৫ কোটি ১৮ লাখ ১৪ হাজার শেয়ার পাওয়ার ডেভেলপমেন্ট বোর্ডের (পিডিবি) অনুকূলে ইস্যু করবে। এজন্য কোন নগদ অর্থ পাবে না পাওয়ার গ্রিড। পিডিবির বিদ্যমান বিনিয়োগের (ডিপোজিট ফর শেয়ার) বিপরীতে ভেন্ডরস চুক্তির আওতায় এই শেয়ার ইস্যু করা হবে।
পাওয়ার গ্রিডের সঙ্গে ২০০২ সালের ভেন্ডরস চুক্তি অনুযায়ী, পিডিবি কোম্পানিটিতে ১৭ কোটি ১৭ লাখ ৪০ হাজার টাকার ইলেকট্রিসিটি ট্রান্সমিশন লাইন, রিহেবিলিটেশন, স্টেশনের রিনোভেশন, যানবাহন ইত্যাদি সরবরাহ করে। এছাড়া ২০০৭ সালের চুক্তি অনুযায়ী ২৩৪ কোটি ৬৪ লাখ টাকার ইলেকট্রিসিটি ট্রান্সমিশন লাইন, রিহেবিলিটেশন, স্টেশনের রিনোভেশন, যানবাহন ইত্যাদি সরবরাহ করে। এই দুই চুক্তির মাধ্যমে মোট ২৫১ কোটি ৮১ লাখ ৪০ হাজার টাকার সম্পদ সরবরাহ করে পিডিবি। এজন্য ওই অর্থের সমপরিমাণ শেয়ার ইস্যু করবে পাওয়ার গ্রিড। এর ফলে পাওয়ার গ্রিডের একই পরিমাণ পরিশোধিত মূলধন বাড়বে। বর্তমানে পাওয়ার গ্রিডের পরিশোধিত মূলধন রয়েছে ৪৬০ কোটি ৯১ লাখ ৩০ হাজার টাকা। তবে পিডিবির অনুকূলে শেয়ার ইস্যুর মাধ্যমে তা বেড়ে দাঁড়াবে ৭১২ কোটি ৭২ লাখ ৭০ হাজার টাকা।
উল্লেখ্য, পিডিবি’র অনুকূলে ইস্যুযোগ্য শেয়ার কৌশলগত বিনিয়োগ হিসাবে লক-ইন থাকবে। যা কমিশনের অনুমোদন ছাড়া বিক্রয় বা হস্তান্তরযোগ্য না।
২০০৬ সালে তালিকাভুক্ত কোম্পানিটির মোট শেয়ারের ৭৬ দশমিক ২৫ শতাংশ শেয়ার রয়েছে উদ্যোক্তা পরিচালকের কাছে। প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে রয়েছে ১৮ দশমিক ৭২ শতাংশ শেয়ার। বিদেশিদের কাছে রয়েছে দশমিক ২৬ শতাংশ শেয়ার রয়েছে প্রতিষ্ঠানের কাছে। বাকি ৪ দশমিক ৭৭ শতাংশ শেয়ার রয়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীর কাছে।
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৪৭৯ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged