পুঁজিবাজারে বড় পতন : রাজপথে ফের বিনিয়োগকারীদের বিক্ষোভ

সময়: মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০১৯ ৩:০৭:৫৬ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : পরপর দ্’ুদিন দেশের উভয় পুঁজিবাজারে বড় ধরনের দর পতনের কারণে গতকাল সোমবার ফের রাজপথে নেমেছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। ‘পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদ’-এর ব্যানারে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা মতিঝিল ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সামনে গতকাল দুপুরে বিক্ষোভ মিছিল করেন। বিক্ষোভ মিছিলটি মতিঝিল শাপলা চত্ত্বর ঘুরে ডিএসইর সামনে এসে শেষ হয়। এর আগে গত বৃহস্পতিবার বিনিয়োগকারীদের একটি প্রতিনিধি দল ১৫ দফা দাবিসহ প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ে স্মারকলিপি জমা দিয়েছেন। এরপর তারা প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপের অপেক্ষায় থেকে গত রোববার আন্দোলন স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছিলেন। কিন্তু গত দুদিনে পুঁজিবাজারে বড় পতনের কারণে তারা আবার রাজপথে নেমেছেন।

বিক্ষোভ সমাবেশে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা বলেন, অব্যাহত দরপতনের প্রতিবাদে আমরা দীর্ঘদিন ধরে আন্দোলন করে যাচ্ছি। প্রতিদিন আমরা পুঁজি হারাচ্ছি। কেউ আমাদের দিকে ফিরে তাকাচ্ছে না। সর্বশেষ কিছু দাবিসহ দেশের অভিভাবক প্রধানমন্ত্রীর নিকট স্মারকলিপি দিয়েছি। কিন্তু স্মারকলিপি দেয়ার পরদিনই বাজারে বড় পতন হয়েছে। আমরা প্রধানমন্ত্রী হস্তক্ষেপ কামনা করেছি। কিন্তু প্রতিদিনই দরপতনের আমরা আর চুপ থাকতে পারলাম না। আবারো রাজপথে নামতে বাধ্য হলাম।

তারা বলেন, একটি দেশের পুঁজিবাজারের সঙ্গে অর্থনীতির যোগসূত্র রয়েছে। পুঁজিবাজারকে ধ্বংস করে দিলে অর্থনীতিতেও তার নেতিবাচক প্রভাব পড়বে। তাই প্রধানমন্ত্রীর কাছে আমাদের দাবি- আমাদের বাঁচান। অর্থমন্ত্রী, আমাদের পুঁজিবাজারকে রক্ষা করুন।
বিনিয়োগকারী ইসতিয়াক আহমেদ বলেন, আমরা প্রতিনিয়ত দরপতনের প্রতিবাদ করে যাচ্ছি। কিন্তু আমাদের কথা কে শোনে? যদি কেউ আমাদের কথা শুনতো তাহলে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে স্মারকলিপি দেয়ার পরের দুই কার্যদিবসে টানা পতন হতো না। আমরা হতবাক হয়ে গেছি। এ বাজারে বিনিয়োগ করে অনেকে আত্মহত্যা করেছে। যদি বাজার স্থিতিশীল না হয় তাহলে আমাদেরও মরে যাওয়া ছাড়া আর কোনো উপায় নেই। তাই অনুরোধ করছি, আমাদের পাশে দাঁড়ান।

বিনিয়োগকারী সোহাগ বলেন, আমরা দুঃখ নিয়ে সমবেত হলাম। আমরা পুঁজির নিরাপত্তার জন্য সমাবেত হয়েছি। আমরা ৩৩ লাখ বিনিয়োগকারীর পুঁজির সুরক্ষা চাই। আমরা এমন এক দেশে আছি, যেখানে দিনের পর দিন ইনডেক্স পড়ছে অথচ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসির লোকজন বিলাসবহুল জীবন-যাপন করছেন। আমরা কমিশনের পুনর্গঠন চাই।

পুঁজিবাজার বিনিয়োগকারী ঐক্য পরিষদের সভাপতি মিজান-উর-রশিদ চৌধুরী বলেন, আমরা প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় পর্যন্ত আমাদের দাবি নিয়ে গিয়েছি। কিন্তু কোনো সাড়া পাচ্ছি না। যতোদিন পর্যন্ত বাজার স্থিতিশীল না হবে, ততোদিন আমাদের আন্দোলন চলবে। বাজারে বেশির ভাগ কোম্পানির শেয়ার ফেস ভ্যালুর নিচে লেনদেন হচ্ছে। অনেক খারাপ কোম্পানি আইপিও মাধ্যমের বাজারে আসায় এমন পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে। তাই আমরা বাই ব্যাক আইন কার্যকর চাই।

তিনি আরো বলেন, বাজার নিয়ে যেসব কুচক্রীমহল সক্রিয়, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন তাদের উৎখাত করতে ব্যর্থ হয়েছে। তাই এ কমিশন ভেঙে নতুন করে গঠন করার দাবি জানাই। একই সঙ্গে বর্তমান চেয়ারম্যান এম খায়রুল হোসেনের পদত্যাগ চাই। কারণ, তার উপর বিনিয়োগকারীদের আস্থা নেই।

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩৭৯ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged