মার্জিন ঋণ পরিশোধে উদ্বিগ্ন মার্চেন্ট ব্যাংক ও বিনিয়োগকারীরা

সময়: মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০১৯ ৩:১৯:০১ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : টানা দরপতনের ফলে মার্চেন্ট ব্যাংক, ব্রোকারেজ হাউজ ও বিনিয়োগকারীরা প্রান্তিক ঋণ (মার্জিন লোন) পরিশোধ নিয়ে উদ্বিগ্ন। প্রতিদিনই কমছে শেয়ারের মূল্য। বিগত এক মাসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) বাজার মূলধন কমেছে ২৪ হাজার কোটি টাকারও বেশি। এ সময় সব ধরণের সূচকও কমেছে। ফলে বাজার সংশ্লিষ্ট কারোরই উদ্বেগ আর কাটছে না।

উল্লেখ্য, গত ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে অধিকাংশ দিবসেই সূচকের পতন হয়েছে। ফলে মার্জিন ঋণ নিয়ে চিন্তিত ঋণদাতা ও গ্রহীতা উভয় পক্ষ। প্রতিনিয়ত শেয়ারের দর কমতে থাকায় ঋণদাতাদের জন্য খুবই উদ্বেগজনক অবস্থা তৈরি হচ্ছে। আবার বিনিয়োগকারীরাও কীভাবে ঋণ পরিশোধ করবেন Ñসেই চিন্তায় রয়েছেন।

‘বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন’ (বিএসইসি)-এর সর্বশেষ সিদ্ধান্ত অনুযায়ী বর্তমানে ১:০.৫ অনুপাতে মার্জিন ঋণ দেয়া হচ্ছে। অর্থাৎ যদি কেউ একশ’ টাকা বিনিয়োগ করে, সে সর্বোচ্চ ৫০ টাকা ঋণ পাবে। বিনিয়োগকারীরা সাধারণত মার্জিন ঋণ নিয়েই শেয়ার ব্যবসা করে থাকেন।

মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকারেজ হাউজগুলো বলছে, এ সময়ে প্রতিদিনই শেয়ারের দর কমেছে। ফলে এক মাস আগের দরের উপর যে ঋণ দেয়া হয়েছে। বর্তমানে ওসব শেয়ারের দর অনেক নিচে অবস্থান করছে। এতে করে আতঙ্কিত অবস্থায় রয়েছে ঋণদাতা প্রতিষ্ঠানগুলো।
এ বিষয়ে রিলায়েন্স ব্রোকারেজ সার্ভিসেস লিমিটেড-এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ শহিদুল ইসলাম ‘দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন’-কে বলেন, ‘বাজারের শেয়ারের দর কমার ফলে ঋণ একটু ঝুঁকির মধ্যে আছে। তবে এখনো কোনো প্রতিষ্ঠান কোনো বাধ্যতামূলক ঋণ বা ফোসর্ড সেল করেনি। সবাই আশায় রয়েছেন- বাজার ঘুরে দাঁড়াবে।’
তিনি বলেন , ‘২০১০ সালেও কোনো ফোসর্ড সেল করা হয়নি। আর এই বাজারে তো প্রশ্নই উঠে না। তবুও ঋণ নিয়ে কিছু চিন্তা তো থাকবেই।’ এ ক্ষেত্রে বিনিয়োগকারীদের ধৈর্য্য ধরার পরামর্শ দেন তিনি ।
এদিকে কিছু মার্চেন্ট ব্যাংক ও ব্রোকারেজ হাউজ জানিয়েছে, তারা মার্জিন ঋণ দেয়ার ক্ষেত্রে বেশ কিছু সর্তকতা অবলম্বন করে থাকেন। ফলে তাদের ক্ষেত্রে তেমন ঝুঁকিপূর্ণ ঋণ নেই। বাজার পরিস্থিতি ঠিক হলেই হয়তো সে লোকসান কাটিয়ে উঠতে পারবে। কিন্তু বাজারে কতোদিন মন্দাভাব থাকবে, সেটাই এখন উদ্বেগের বিষয়।
এ বিষয়ে ঢাকা ব্যাংক সিকিউরিটিজের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রাধা রমন সাহা ‘দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন’-কে জানান, তারা মার্জিন লোন দেয়ার জন্য কিছু শর্ত যুক্ত করে দেন। যেমনÑ মূল্য ও আয়ের অনুপাত (পিই রেশিও) ৪০-এর বেশি হলে আর ঋণ দেয়া হয় না। এছাড়া মার্জিন লোনের জন্য কিছু কোম্পানি তালিকাও করা আছে। যেসব কোম্পানির মৌলভিত্তি ভালো, শুধু সেসব কোম্পানির শেয়ারেই ঋণ দেয়া হয়। ফলে ঋণের ব্যপারে ততোটা উদ্বিগ্ন নই। সাময়িকভাবে হয়তো দর কমেছে, কিন্তু ভাল শেয়ার থাকায় আতঙ্কিত হওয়ার কোনো কারণ নেই।

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৭৬৫ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged