editorial

ট্রেড লাইসেন্সধারী ব্যবসায়ীদের বাধ্যতামূলক অগ্নিবীমা

লাভবান হবে উভয়পক্ষ

সময়: সোমবার, ডিসেম্বর ২, ২০১৯ ৬:৩৫:৫৯ অপরাহ্ণ


বর্তমান সময়ে ব্যবসায় অনেক নতুন নতুন ক্ষেত্র তৈরি হচ্ছে। শিক্ষিত তরুণ প্রজন্ম বেকার না থেকে ব্যবসার দিকে ঝোঁকছে। পিছিয়ে নেই দেশের নারী সমাজও। তারাও আজ চার দেয়াল থেকে বের হয়ে পা রাখছে বাইরে। ফলে বাড়ছে ব্যবসায়িক পরিধি। আর এ কারণে রাজধানীসহ সারা দেশে ট্রেড লাইসেন্সধারী ব্যবসায়ীর সংখ্যাও বাড়ছে সমানতালে। আর এ ট্রেড লাইসেন্সধারী ব্যবসায়ীদের সুরক্ষায় এবার অগ্নিবীমা বাধ্যতামূলক করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এটি অবশ্যই একটি সময়োপযোগী পদক্ষেপ। ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা ও ব্যবসায়ীরা বীমার আওতায় না থাকার ফলে কোনো দুর্ঘটনা ঘটলে তাদের পক্ষে ক্ষতি পূরণ পাওয়া সম্ভব হয় না। অগ্নিবীমার আওতায় এলে ব্যবসা প্রতিষ্ঠান যেমন সুরক্ষিত থাকবে তেমনি সাধারণ বীমা খাতের ব্যবসায়িক পরিধিও বাড়বে। এতে উভয়েই লাভবান হবে।
ঢাকা উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের তুলনায় গত অর্থবছরে ৭৮ হাজারের বেশি ট্রেড লাইসেন্সধারী ব্যবসায়ী বেড়েছে। দুই সিটি করপোরেশনে লাইসেন্সধারী মোট ব্যবসায়ীর সংখ্যা প্রায় চার লাখ ৬৩ হাজার। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৩৫ হাজার ৩৮টি ট্রেড লাইসেন্স ইস্যু ও নবায়ন করেছে। আর ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি) নবায়ন ও ইস্যু করেছে ৪৩ হাজার ২৪২টি লাইসেন্স। দুই সিটি মিলিয়ে এক বছরে ট্রেড লাইসেন্সের সংখ্যা বেড়েছে ৭৮ হাজার ২৮০টি। ট্রেড লাইসেন্স নিয়ে ব্যবসা করার প্রবণতা বাড়ার কারণে দুই সিটি করপোরেশনের রাজস্বও বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে। এ তো গেল ঢাকা শহরের চিত্র। সারা দেশে এভাবেই বাড়ছে ট্রেড লাইসেন্সের সংখ্যা।
আমাদের দেশে স্বেচ্ছায় কোন ব্যক্তি সম্পদের অগ্নিবীমা করে না। অগ্নিবীমার অধিকাংশ পলিসিই গ্রাহকরা করে থাকে বাধ্য হয়ে। দেশের আর্থ-সামাজিক বাস্তবতা অনুসারে ব্যাংক থেকে ঋণ নিয়ে কোনো শিল্প-কারখানা, ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বা ভবন নির্মাণ করা হলে এসব সম্পত্তির অগ্নিবীমা করা হয়ে থাকে। ব্যক্তিপর্যায়ে সম্পত্তি সুরক্ষার জন্য কারো মধ্যেই সচেতনতা দেখা যায় না। কিন্তু যখনই ক্ষতির মুখে পড়ে তখনই বিষয়টি নিয়ে তাদের মধ্যে উদ্বেগ দেখা যায়। আর আমাদের দেশে সচেতনায় হোক আর অসচেনতনায় হোক অগ্নিকাণ্ডের পরিমাণ বেড়েছে আশঙ্কাজনকহারে। আবার কিছু কিছু দুর্ঘটনা ঘটছে অনাকাক্সিক্ষতভাবেই। তাই অগ্নিবীমা বাধ্যতামূলক করার উদ্যোগ সরকারের একটি সময়োপযোগী সিদ্ধান্ত। এতে উভয়পক্ষই লাভবান হবে। গ্রহকের সম্পদ যেমন সুরক্ষিত থাকবে তেমনি সাধারণ বীমা খাতের ব্যবসায়িক পরিধি বাড়বে।
তাই কালক্ষেপণ না করে ব্যবসায়িক সুরক্ষায় এ সংক্রান্ত একটি কার্যকর আইন প্রণয়ন এবং বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিতে হবে। প্রণীত আইনটি যাতে কঠোরভাবে বাস্তবায়ন করা হয় সংশ্লিষ্ট কর্র্তৃপক্ষকে তা নিশ্চিত করতে হবে। কেউ যাতে অগ্নিবীমার আওতার বাইরে না থাকে সে ব্যাপারে কঠোর নজরদারি করতে হবে। যারা অগ্নিবীমা করবে না তাদের ট্রেড লাইসেন্স বাতিল করার বিধি আইনে সংযোজন করা যেতে পারে।

Share
নিউজটি ৩২৮ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged