স্টক এক্সচেঞ্জ খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে : হেলাল উদ্দিন নিজামী

সময়: রবিবার, অক্টোবর ৬, ২০১৯ ৯:২৬:৪৪ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : করপোরেট গভর্নেন্স বাস্তবায়নে স্টক এক্সচেঞ্জকে শক্তিশালী হওয়া দরকার। অথচ স্টক এক্সচেঞ্জ খুঁড়িয়ে খুঁড়িয়ে চলছে। স্টক এক্সচেঞ্জের সক্ষমতার অনেক অভাব রয়েছে।
গতকাল শনিবার ‘অ্যাওয়ারনেস প্রোগ্রাম অন করপোরেট গভর্নেন্স কোড’ শীর্ষক আলোচনা সভায় বাংলাদেশ সিকিউরটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) কমিশনার অধ্যাপক মো. হেলাল উদ্দিন নিজামী এসব কথা বলেন। বিনিয়োগকারী সপ্তাহ উপলক্ষে বাংলাদেশ মার্চেন্ট ব্যাংকার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিএমবিএ) এর উদ্যোগে সংগঠনটির নিজস্ব অফিস রাজধানীর বিজয়নগরে সেমিনারটির আয়োজন করে। সেমিনারে বিএমবিএ প্রেসিডেন্ট মোহাম্মদ নাসির উদ্দিন চৌধুরী, মহাসচিব খায়রুল বাশার আবু তাহের মোহাম্মদ, সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. রফিকুল ইসলাম, সাবেক প্রেসিডেন্ট ছায়েদুর রহমান এবং কার্যনির্বাহী সদস্য মাহবুব হোসেন মজুমদার উপস্থিত ছিলেন। সেমিনারে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানের কোম্পানি সচিব, কোম্পানির প্রধান অর্থ কর্মকর্তা, কমপ্ল্যায়েন্স কর্মকর্তারা অংশ নেন।
সেমিনারে মূল প্রবন্ধ পাঠ করেন লংকাবাংলা ইনভেস্টমেন্টের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (চলতি দায়িত্ব) ইফতেখার আলম। তিনি করপোরেট গভর্নেন্স কোড বাস্তবায়নের নানা দিক তুলে ধরেন। এরপর বিভিন্ন কোম্পানির প্রতিনিধিরা আলোচনায় তাদের বক্তব্য তুলে ধরেন।
হেলাল উদ্দিন নিজামী বলেন, ‘তালিকাভুক্ত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উদ্যোক্তা পরিচালকরা কোম্পানির সচিবদের ব্যক্তিগত সচিব হিসাবে ব্যবহার করছেন। তারাও চাকরি বাঁচানোর তাগিদে উদ্যোক্তাদের ব্যক্তিগত উদ্দেশ্য হাসিলের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। এ বিষয়টি আজকের অনুষ্ঠানে উপস্থিত তালিকাভুক্ত কোম্পানির প্রতিনিধিরা বললে খুশি হতাম। এ সময় উপস্থিত কোম্পানির কর্মকর্তারা বলেন, স্যার বিষয়টি জনসম্মুখে বলা যাবে না। আমরা তো চাকরি করি।’
নিজামী বলেন, ‘বর্তমান কমিশন পুঁজিবাজারের জন্য বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য কাজ করেছে। এর মধ্যে ৪টি আইন করেছে। লোকবলের অভাবে অনেক কাজই কমিশন করতে পারছে না। লোকবলের অভাব পূরণের পূর্বশর্ত ছিল বিএসইসির অর্গানোগ্রাম করা, কর্মকর্তাদের জন্য গ্রেডিং সিস্টেম করা। বিএসইসি কর্মকর্তাদের জন্য কোনো ধরনের গ্রেডিং ছিল না। ছিল না কোনো অর্গানোগ্রাম। আমরা এসব করেছি। বর্তমানে বিএসইসি কর্মকর্তাদের জন্য গ্রেডিং সিস্টেমের বিষয়টি প্রশাসনিক উন্নয়ন সংক্রান্ত সচিব কমিটি অনুমোদন দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপের কারণে এটি সম্ভব হয়েছে। বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীর অনুমোদন পেলেই গেজেট আকারে প্রকাশ হবে। এ গ্রেডিং সিস্টেমের মাধ্যমে বিএসইসির কর্মকর্তারা পুঁজিবাজার সুরক্ষায় অবদান রাখতে পারবে।’
তিনি বলেন, ‘একটি কোম্পানি স্বচ্ছতার সঙ্গে পরিচালিত হোক সেটা মালিকরাই চায় না। এ কারণে আমাদের করপোরেট গভর্নেন্স কোড করতে হয়েছে। স্বতন্ত্র পরিচালকদের পদে নিয়োগসহ নানা ধরনের সংস্কার করা হয়েছে। স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগের নিয়মও আইনে উল্লেখ করা হয়েছে। স্বতন্ত্র পরিচালকদের পদ শক্তিশালী না হলে ভবিষ্যতে সাক্ষাৎকার নিয়ে স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগ দেবে কমিশন। স্বতন্ত্র পরিচালকের পদ আইনগতভাবে কাজে লাগাতে পারলে কোম্পানির সুশাসন নিশ্চিত সম্ভব হবে। একই সঙ্গে একটি কোম্পানি যত বেশি করপোরেট গভর্নেন্স কোড বাস্তবায়ন করতে পারবে সে কোম্পানি তত উপকৃত হবে।’
সভায় অংশগ্রহণকারী বিভিন্ন কোম্পানির প্রতিনিধিরা তাদের বক্তব্যে বলেন, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ব্যাংক ও নন ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর জন্য করপোরেট গভর্নেন্স কোড পরিপালন করার কিছু ক্ষেত্রে সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। এর মধ্যে বোর্ড গঠনে দুই ধরনের নিয়ম রয়েছে, একই সঙ্গে পরিচালক পদের সংখ্যা নিয়েও জটিলতা রয়েছে। এসব সমস্যা সমাধান করলে করপোরেট গভর্নেন্স কোড পরিপালন করা সম্ভব। একই সঙ্গে করপোরেট গভর্নেন্স কোড পরিপালনে কোম্পানির উদ্যোক্তাদের নিয়ে সচেনতামূলক কার্যক্রম বাড়ানোর তাগিদ দেন তারা। উদ্যোক্তাদের সচেতনতার মাধ্যমে কোম্পানি সচিব, কোম্পানির প্রধান অর্থ কর্মকর্তা ও দায়িত্বশীলদের করপোরেট গভর্নেন্স বাস্তবায়ন সহায়ক হবে। যতদিন পর্যন্ত কোম্পানির উদ্যোক্তারা সচেতন না হবেন ততদিন সুশাসন পরিপালন করা বড় ধরনের চ্যালেঞ্জ বলে জানান তারা।
তারা আরও বলেন, কোম্পানির স্বতন্ত্র পরিচালকরা কোনো ধরনের ভূমিকা রাখে না। তারা শুধু পর্ষদ মিটিংয়ে উপস্থিত হয়ে ফি নিয়ে চলে যান। একটি কোম্পানিতে স্বতন্ত্র পরিচালকদের কথা বলার নিজস্ব শক্তি দরকার। কিন্তু আসলে তা হচ্ছে না। তাই কোম্পানির উন্নয়নে স্বতন্ত্র পরিচালকদের শক্তিশালী করা দরকার বলে জানান তারা।
এছাড়া একটি তালিকাভুক্ত কোম্পানির স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগের ক্ষেত্রে পর্ষদের নিয়োগের দিন, নাকি বার্ষিক সাধারণ সভায় (এজিএম) শেয়ারহোল্ডারদের সম্মতির দিন থেকে নিয়োগ কার্যকর করা হবে Ñতা নিয়েও স্পষ্ট কিছু বলা নেই করপোরেট গভর্নেন্স কোড-এ। তাই বিষয়টি স্পষ্ট করার আহ্বান জানান কোম্পানির প্রতিনিধিরা।

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩২১ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged