স্বতন্ত্র পরিচালকরা সঠিকভাবে দায়িত্ব পালন করতে পারছেন না: হেলাল উদ্দিন নেজামী

সময়: বুধবার, অক্টোবর ২, ২০১৯ ১২:০১:৫৩ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) সদস্য হেলাল উদ্দিন নিজামী বলেছেন, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির স্বতন্ত্র পরিচালকরা নিজেদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করতে পারছেন না। তারা এখন অনেকেই পরিবারতান্ত্রিক সংকৃতির মধ্যে পড়ে গেছে। সেখানে থেকে বেরিয়ে এসে কোম্পানিগুলোতে করপোরেট গভর্ন্যান্স প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়েছেন তিনি।
গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁয়ে ‘দ্যা রুল অব ইন্ডিপেন্ডেন্ট ডিরেক্টরস টু প্রটেক্ট দ্য ইন্টারেস্ট অব মনিটরি শেয়ারহোল্ডারস’ শীর্ষক সেমিনারের প্রধান অতিথি হিসেবে তিনি এসব কথা বলেন।
হেলাল উদ্দিন নিজামী বলেন, বিনিয়োগকারী ও সরকারের স্বার্থরক্ষার জন্য কোম্পানিতে স্বতন্ত্র পরিচালক রাখা হয়েছে। তবে তারা তাদের দায়িত্ব সঠিকভাবে পালন করছেন না। পরিবারতান্ত্রিকতার চাপে তারা অনেক বিষয় দেখতে পারছেন না। কারণ তালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলোর পরিচালনা পর্ষদের ক্ষমতা এখনও পারিবারিক সদস্যদের হাতে রয়েছে। স্বতন্ত্র পরিচালকরা এখনো তাদের ক্ষমতা পুরোপুরি আরোপ করতে পারছেন না।
ফলে তারা কোম্পানির অডিট রিপোর্টসহ বিভিন্ন বিষয়গুলো দেখার কথা থাকলেও সঠিকভাবে দেখতে পারছেন না। বরং অনেক সমস্যার মধ্যে পড়তে হচ্ছে এসব পরিচালকদের। এসব সমস্যার মধ্যে থেকেও তারা কমিশনের সঙ্গেও কথা বলছেন না। এতে সমস্যা থেকেই যাচ্ছে। আমি আহ্বান জানাচ্ছি স্বতন্ত্র পরিচালকরা কমিশনের সঙ্গে নিয়মিত যোগাযোগ রাখবেন। সমস্যাগুলো জানাবেন, আমরা আপনাদের সহযোগিতা করবো।
তিনি বলেন, বাংলাদেশে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কেম্পানিগুলোর পরিচালনা পর্ষদে মাত্র ২০ শতাংশ স্বতন্ত্র পরিচালক রয়েছে। অথচ পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতসহ সারাবিশ্বে তালিকাভুক্ত কোম্পানির পরিচালনা পর্ষদে স্বতন্ত্র পরিচালকের সংখ্যা আরও বেশি। এতে ওইসব দেশের কোম্পানিগুলোতে করপোরেট গভর্ন্যান্স প্রতিষ্ঠার হার বেশি। এছাড়া বিভিন্ন দেশের কোম্পানিতে স্বতন্ত্র পরিচালক ইন্টারভিওয়ের মাধ্যমে নিয়োগ দেয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু আমাদের দেশে তার সুযোগ নেই। ইস্যুয়ার কোম্পানিতে তাদের স্বতন্ত্র পরিচালক নির্বাচনের ক্ষেত্রে আগে কোন নিয়মই ছিল না। এখন নিয়মের আওতায় আনা হচ্ছে। ভবিষ্যতে কর্পোরেট গভার্ন্যান্স আইনে স্টক এক্সচেঞ্জের ক্ষমতা বাড়ানো হবে বলে জানান তিনি।
তিনি বলেন, ২০১২ সালে বিএসইসি কর্পোরেট গভার্নেন্স জোরদার করার জন্য ৬০টি সেকশনে ৯৫টি শর্ত অন্তর্ভুক্ত করেছে। সেখানে আগে ৫টি সেকশনে ৩৭টি শর্ত ছিল। ২০১৮ সালে যে কর্পোরেট গভর্ন্যান্স কোড করা হয়েছে সেখানে ৯টি সেকশনে ১৬৬টি শর্ত অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। এখন শর্তগুলো প্রতিপালন হচ্ছে। কিন্তু কর্পোরেট গভর্ন্যান্স তেমনভাবে পালন হচ্ছে না। ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন অফ সিকিউরিটিজ কমিশন (আইওএসসিও) নিয়মনীতি অনুসরণ করে এনআরসি কমিটি দেয়া হয়েছে। চার্টার্ড একাউন্টটেন্স, অডিট ফার্মগুলোতে কঠোরতা গ্রহণ করা হয়েছে। যার ফলে এখন একটা প্রতাশা এবং বিশ্বাসের জায়গা তৈরি হয়েছে। তবে আপনারা যদি মনে করে থাকেন কোন ধরনের গভর্ন্যান্স ছাড়াই ব্যবসায় লাভ করা যাচ্ছে; তাহলে শুনে রাখুন- এটা আর বেশি দিন কার্যকর হবে না। শিগগিরই এ নিয়ে কার্যকর পদক্ষেপ নেয়া হবে।
বিএসইসির কমিশনার বলেন, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত হওয়ার মত অন্তত ৩ হাজার কোম্পানি রয়েছে। এর মধ্যে মাত্র ৩৫০টি কোম্পানি তালিকাভুক্ত আছে। এখনো কোম্পানিগুলো দীর্ঘমেয়াদি বিনিয়োগের জন্য ব্যাংকে যাচ্ছে। ৫ বছর অর্থাৎ দীর্ঘমেয়াদে ব্যাংকে বিনিয়োগ করলেই, এটি দেশের অর্থনীতির জন্য বিপদজনক ছাড়া কিছু না। এটা পরিহার করতে হবে। দেশীয় কোম্পানিগুলোকে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত করতে হবে। ইস্যুয়ার কোম্পানিগুলোকে পরিচালকদের কোটা পরিচালন করতে হবে। তিনি অনুষ্ঠানে বিনিয়োগকারীদের সচেতনতা বৃদ্ধিতে কোম্পানিতে স্বতন্ত্র পরিচালকের কাজের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।
ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) চেয়ারম্যান অধ্যাপক আবুল হাশেমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন ডিএসইর এমডি (ইনচার্জ) আব্দুল মতিন পাটোয়ারী। এসময় উপস্থিত ছিলেন, ডিএসইর পরিচালক মিনহাজ মান্নান ইমন, বিএসইসির নির্বাহী সদস্য মো. সাইফুর রহমানসহ বিএসইসি ও ডিএসইর কর্মকর্তারা।

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৪৮৪ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged