আর্থিক প্রতিবেদনে অনিয়ম

১৪ ব্রোকারেজ হাউজ পরিদর্শন করবে বিএসইসি

সময়: বুধবার, অক্টোবর ২৩, ২০১৯ ৯:২৩:৪০ পূর্বাহ্ণ


সালাহ উদ্দিন মাহমুদ : গত বছর জুনে সমাপ্ত ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ (ডিএসই)-এর ব্রোকারেজ হাউজগুলোর নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনায় নানা অনিয়ম পরিলক্ষিত হয়েছে। এমতাবস্থায় অনিয়মের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে ১৪টি ব্রোকারেজ হাউজ সরেজমিনে পরিদর্শনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিএসইসি। সংশ্লিষ্ট সূত্রে এ কথা জানা গেছে।
ডিএসই’র প্রতিবেদনে দেখা যায়, ১৯৩টি প্রতিষ্ঠান তাদের সমাপ্ত বছরের নিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন জমা দিয়েছে। এগুলোর মধ্যে নানা কারণে ৭টি প্রতিষ্ঠানের আর্থিক প্রতিবেদন বিএসইসি-তে জমা দেয়নি ডিএসই। অবশিষ্ট ১৮৬টি প্রতিষ্ঠানের মধ্যে ৭৯টি প্রতিষ্ঠানের আর্থিক বিবরণীর ওপর বিএসইসি’র এসআরআই বিভাগ তাদের পর্যবেক্ষণ দিয়েছে। এসআরআই বিভাগের পর্যবেক্ষণে ওঠে এসেছে- ১৮টি ট্রেকহোল্ডার তাদের সমন্বিত গ্রাহক হিসাবে পরিচালকদের প্রদানকৃত ঋণ, হাতে নগদ এবং জমির জন্য প্রদানকৃত অগ্রিমের টাকা ৪২ কোটি ৪১ লাখ সমন্বয় করেছে। এসব ট্রেকহোল্ডারগণ ডিএসই এর মার্জিন সমন্বয়ের জন্য সমন্বিত গ্রাহক হিসাবের টাকা ব্যবহার করেছে। ৩টি ট্রেকহোল্ডারের সমন্বিত গ্রাহক হিসাবে ঘাটতি রয়েছে। আবার ৩টি ট্রেকহোল্ডার তাদের পরিচালকদের ঋণ প্রদান করেছে।
জানা যায়, ১৬টি ট্রেকহোল্ডার কর্তৃক মার্জিন রুলস ১৯৯৯ এর রুল ৩ (১) এবং ৩ (২) লঙ্ঘন করেছে। ৫টি ট্রেকহোল্ডার কর্তৃক প্রোপার্টি সেক্টরে বিনিয়োগ করা হয়েছে। এর মধ্যে কিছু বিনিয়োগ অনেক আগের। তবে যে প্রোপার্টিতে বিনিয়োগ করা হয়েছে; তা এখনও নিবন্ধন করা হয়নি। ৫টি ট্রেকহোল্ডার তার সিস্টার কনসার্নকে ঋণ প্রদান করেছে। ২৭টি ট্রেকহোল্ডার তার আর্থিক বিবরণী প্রকাশে বিভিন্ন ধরনের ভুল করছে।
প্রতিবেদনে ওঠে এসেছে, ১৪টি ট্রেকহোল্ডারের পেয়েবল টু ক্লায়েন্টস, আইপিও পেয়েবল, ইনভেস্টমেন্ট ইন ডিলার অ্যাকাউন্টস, ক্রেডিট ফ্যাসেলিটিস টু কাস্টমার্সসহ নানা বিষয়ে সন্দেহজনক। তাই কমিশন প্রতিষ্ঠানগুলোর বিরুদ্ধে সরাসরি পরিদর্শন কার্যক্রম পরিচালনা করবে।
কোম্পানিগুলো হচ্ছে- রয়্যাল গ্রিন, সালতা ক্যাপিটাল, আইল্যান্ড সিকিউরিটিজ, ইউনিক শেয়ার ম্যানেজমেন্ট, সাদ সিকিউরিটিজ, জয়তুন সিকিউরিটিজ, সাবভ্যালি সিকিউরিটিজ, শাহ মোহাম্মদ সগির, অ্যাংকর সিকিউরিটিজ, ওয়াইফাং সিকিউরিটিজ, শার্প সিকিউরিটিজ, রাসতি সিকিউরিটিজ এবং স্টারলিং স্টক অ্যান্ড সিকিউরিটিজ লিমিটেড।
আর্থিক প্রতিবেদনে এ ধরণের ভুলের কারণে বেশ কিছু প্রতিষ্ঠানকে শাস্তির আওতায় আনা হয়েছে। এর মধ্যে সিনহা সিকিউরিটজ, শাহ মোহাম্মদ সগির অ্যান্ড কোম্পানি এবং ওয়াইফাং সিকিউরিটিজকে সমন্বিত গ্রাহক হিসাবে ঘাটতি সমন্বয়ের জন্য ৪ মাস সময় দেয়া হয়েছে। আর প্রুডেন্টসিয়াল সিকিউরিটিজ, হ্যাক সিকিউরিটিজ এবং রাসতি সিকিউরিটিজ অ্যান্ড কনসালটেন্ট পরিচালকদের ঋণ প্রদান করেছে। এতে প্রতিষ্ঠানগুলো সিকিউরিটিজ আইন লঙ্ঘন করেছে। ফলে প্রতিষ্ঠানগুলোকে ঋণ সমন্বয়ের জন্য জন্য ৪ মাস সময় দেয়া হয়েছে।
এদিকে এরশাদ সিকিউরিটিজ, হাজী আহমেদ ব্রাদার্স, হ্যাক সিকিউরিটিজ, আল-হাজা জাহনারা, কিএইচবি সিকিউরিটিজ, সাবভ্যালি সিকিউরিটিজ, ওষধী সিকিউরিটিজ, শার্প সিকিউরিটিজ, মডার্ন সিকিউরিটিজ, মাল্টি সিকিউরিটিজ, এএনএফ ম্যানেজমেন্ট এবং এম সিকিউরিটিজ তাদের গ্রাহক হিসাব সমন্বয় করলেও ১ বছর পর্যবেক্ষণ করবে বিএসইসি।
আর আজম সিকিউরিটিজ, আল-মুন্তাহা ট্রেডিং, ই সিকিউরিটিজ, রয়্যাল গ্রিন, তমহা, আলী সিকিউরিটিজ, ইত্তিহাদ সিকিউরিটিজ, সাদ সিকিউরিটিজ, থিয়া সিকিউরিটিজ, আল-হাজা জাহনারা, জয়তুন সিকিউরিটিজ, ইনভেস্টমেন্ট প্রোমশন, শাহ মোহাম্মদ সগির, হযরত আমানত শাহ, শার্প সিকিউরিটিজ, মডার্ন সিকিউরিটিজ মার্জিন রুলস ১৯৯৯ এর রুল ৩(১) এবং ৩(২) লঙ্ঘন করেছে। এই ১৬টি প্রতিষ্ঠানকে আগামী ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ এর মধ্যে লঙ্ঘনকৃত মার্জিন ঋণ যথাযথভাবে পরিপালন করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে। ৫টি ট্রেকহোল্ডারের প্রোপার্টিতে বিনিয়োগ এবং ৫টি ট্রেকহোল্ডার তার সিস্টার কনসার্নকে ঋণ প্রদান সংক্রান্ত বিস্তারিত তথ্য বিএসইসিতে জমা প্রদান নির্দেশ দেয়া হয়েছে।
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৪৭০ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged