অতিরিক্ত ব্যয় কমিয়েছে ১৭ সাধারণ বীমা কোম্পানি

সময়: রবিবার, নভেম্বর ১৭, ২০১৯ ৯:২৬:৩১ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : বীমা খাতের অতিরিক্ত ব্যয় নিয়ন্ত্রণে শুরু থেকেই নানান ধরনের পদক্ষেপ নিয়েছে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তপক্ষ। যার ফলশ্রুতিতে এ খাতে ব্যয় অনেকটাই কমেছে। সাধারণ বীমা খাতের ১৭টি কোম্পানি নির্ধারিত সীমার চাইতে কম ব্যয় করেছে বলে জানা গেছে। নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের কাছে কোম্পানিগুলোর দাখিল করা ব্যবসায়িক প্রতিবেদনে এমন চিত্রই উঠে এসেছে।
জানা যায়, ২০১৮ সালে এশিয়া প্যাসিফিক ইন্স্যুরেন্সের মোট ব্যয় হয়েছে ৮ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। যা নির্ধারিত সীমার চাইতে ৬ কোটি ৯৭ লাখ টাকা কম। এছাড়া এ বছরের প্রথম প্রান্তিকেও ৭ লাখ টাকা কম ব্যয় করেছে কোম্পানিটি।
গত বছর মোট ১৯ কোটি ১৯ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে কন্টিনেন্টাল ইন্স্যুরেন্সের। এসময় ১ কোটি ১৮ লাখ টাকা ব্যয় কমেছে এ কোম্পানির। প্রথম প্রান্তিকে নির্ধারিত সীমার চাইতে ১০ লাখ টাকা কম ব্যয় করেছে এ কোম্পানির।
এদিকে, গত বছর দেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের ব্যয় কমেছে ১২ লাখ টাকা। সে বছর কোম্পানিটির মোট ব্যয়ের পরিমাণ ছিল ৭ কোটি টাকা।
২০১৮ সালে ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্সের মোট ব্যয় হয়েছে ৪০ কোটি ৯৫ লাখ টাকা। এসময় ৭ কোটি ৩৩ লাখ টাকা ব্যয় কমেছে এ কোম্পানির।
জানা যায়, গত বছর ১ কোটি ৬০ লাখ টাকা ব্যয় কমিয়েছে গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্স। এ সময় কোম্পানিটির মোট ব্যয় দাঁড়িয়েছে ১৫ কোটি ৮০ লাখ টাকা।
২০১৮ সালে গ্রীনডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের মোট ব্যয় হয়েছে ১৪২ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। তবে নির্ধারিত সীমার চাইতে ৫৬ লাখ টাকা ব্যয় কমেছে কোম্পানিটির। এছাড়া প্রথম প্রান্তিকে এ কোম্পানির ব্যয় কমেছে ১২ কোটি টাকা।
এদিকে, গত বছর ১ কোটি ৫৮ লাখ টাকা ব্যয় কমিয়েছে জনতা ইন্স্যুরেন্স। সে বছর কোম্পানিটির মোট ব্যয় দাঁড়িয়েছে ৯ কোটি ২৬ লাখ টাকা। প্রথম প্রান্তিকেও এ কোম্পানির ব্যয় কমেছে ৫৪ লাখ টাকা।
জানা গেছে, ২০১৮ সালে ১৩ কোটি ৯৬ লাখ টাকা মোট ব্যয় হয়েছে মার্কেন্টালইল ইন্স্যুরেন্সের। এ সময় ৪৯ লাখ টাকা ব্যয় কমেছে এ কোম্পানির। এ বছরের প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির ব্যয় কমেছে ৭৯ লাখ টাকা।
গত বছর প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের মোট ব্যয় দাঁড়িয়েছে ৯ কোটি ২০ লাখ টাকা। এসময় নির্ধারিত সীমার চাইতে ২ কোটি ১৩ লাখ টাকা ব্যয় কমিছে এ কোম্পানি। এ বছরের প্রখম প্রান্তিকে কোম্পানিটির ব্যয় কমেছে ৪২ লাখ টাকা।
জানা যায়, গত বছর ৩১ কোটি ২০ লাখ টাকা মোট ব্যয় দাঁড়িয়েছে পিপলস ইন্স্যুরেন্সের। এসময় ৩০ লাখ টাকা ব্যয় কমিয়েছে কোম্পানিটি।
২০১৮ সালে পিপলস ইন্স্যুরেন্সের মোট ব্যয় হয়েছে ৩১ কোটি ২০ লাখ টাকা। সে বছর কোম্পানিটির অতিরিক্ত ব্যয় কমেছে ৩০ লাখ টাকা।
জানা যায়, গত বছর ৪৫ কোটি ৮১ লাখ টাকা মোট ব্যয় করেছে পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্স। এসময় নির্ধারিত সীমার চাইতে ২৯ কোটি ১১ লাখ টাকা ব্যয় কমিয়েছে এ কোম্পানি। প্রথম প্রান্তিকেও কোম্পানিটির ব্যয় কমেছে ১১ কোটি ৩৫ লাখ টাকা।
২০১৮ সালে ১ কোটি ৪ লাখ টাকা ব্যয় কমিয়েছে প্রভাতী ইন্স্যুরেন্স। সে বছর মোট ২১ কোটি ৫৩ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে এ কোম্পানির।
গত বছর রুপালী ইন্স্যুরেন্সের মোট ব্যয় হয়েছে ২০ কোটি ৬৩ লাখ টাকা। এ সময় ৫ কোটি ৮৫ লাখ টাকা কম ব্যয় করেছে এ কোম্পানি। এছাড়া প্রথম প্রান্তিকে কোম্পানিটির ব্যয় কমেছে ২ কোটি ৩৯ লাখ টাকা।
২০১৮ সালে মোট ১১৩ কোটি ১৪ লাখ টাকা ব্যয় হয়েছে এসবিসির। এসময় কোম্পানিটির ব্যয় কমেছে ২৬ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। এদিকে প্রথম প্রান্তিকে এ কোম্পানির ব্যয় কমেছে ৫ কোটি ৯৭ লাখ টাকা।
জানা গেছে, ২০১৮ সালে সেনাকল্যাণ ইন্স্যুরেন্সের মোট ব্যয় হয়েছে ৮ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। যা নির্ধারিত সীমার চাইতে ৪ কোটি ৯৫ লাখ টাকা কম। প্রথম প্রান্তিকে ৭৫ লাখ টাকা ব্যয় কমিয়েছে এ কোম্পানি।
গত বছর ৩ কোটি ৬৪ লাখ টাকা ব্যয় কমিয়েছে সিকদার ইন্স্যুরেন্স। এসময় কোম্পানিটির মোট ছিল ১১ কোটি ৬৩ লাখ টাকা।
এদিকে, গত বছর ইউনিয়ন ইন্স্যুরেন্সের মোট ব্যয় হয়েছে ১২ কোটি ৩ লাখ টাকা। যা নির্ধারিত সীমার চাইতে ২১ লাখ টাকা কম। এছাড়া প্রথম প্রান্তিকে ৬ লাখ টাকা ব্যয় কমিয়েছে এ কোম্পানি।

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩৩০ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged