অধিকাংশ সূচকে আইডিএলসি ফাইন্যান্সের অবনতি

সময়: রবিবার, সেপ্টেম্বর ২৯, ২০১৯ ১২:০৪:০৪ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : দীর্ঘ মন্দা পুুঁজিবাজারে নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোতে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এর বাতাস লেগেছে দেশের শীর্ষস্থানীয় আর্থিক প্রতিষ্ঠান আইডিএলসি ফাইন্যান্সেও। কোম্পানিটির মুনাফা, শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস), রিটার্ন অন ইক্যুয়িটি, রিটার্ন অন অ্যাসেট, নিট অপারেটিং ক্যাশ ফ্লো, নন ইন্টারেস্ট ইনকাম, নিজস্ব বিনিয়োগ, বিদেশি বিনিয়োগ কমে যাওয়ার মাধ্যমে অধিকাংশ সূচকে অবনতি লক্ষ্য করা গেছে। জুনের অর্ধবার্ষিক আর্থিক প্রতিবেদন পর্যালোচনায় এ তথ্য পাওয়া গেছে। আইডিএলসি ফাইন্যান্সের মুনাফায় কমার পর কোম্পানির শেয়ার দরেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এ অবস্থা থেকে প্রতিষ্ঠানটি ঘুরে দাঁড়াতে না পাড়লে বিনিয়োগকারীরা ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
তথ্যমতে, চলতি বছরের জুন শেষে কোম্পানিটির মুনাফা হয়েছে ১০৫ কোটি টাকা, শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ২ টাকা ৭৯ পয়সা, শেয়ারপ্রতি সম্পদ মূল্য (এনএভিপিএস) দাঁড়িয়েছে ৩৫ টাকা ৪৬ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে মুনাফা হয়েছিল ১১১ কোটি টাকা, ইপিএস ২ টাকা ৯৫ পয়সা, এনএভিপিএস ৩৬ টাকা ১৭ পয়সা। এক বছরের ব্যবধানে মুনাফা, ইপিএস, এনএভিপিএস কমেছে।
এদিকে চলতি বছর জুন শেষে কোম্পানিটির বিনিয়োগের পরিমাণ দাঁড়িয়েছে ৫৫২ কোটি ৩৯ লাখ টাকা, আগের বছর একই সময়ে বিনিয়োগের পরিমাণ ছিল ৭৩০ কোটি টাকা। বছরের ব্যবধানে বিনিয়োগ কমেছে ২৪ শতাংশের বেশি। কোম্পানিটির রিটার্ন অন ইক্যুয়িটি আগের বছরের চেয়ে সাড়ে ৩ শতাংশ এবং রিটার্ন অন অ্যাসেট ১২ শতাংশের বেশি কমেছে। তবে বেড়েছে পরিচালন ব্যয়। কোম্পানিটি গত জুন শেষে পরিচালন ব্যয় হয়েছে ১১৭ কোটি টাকা, আগের বছর একই সময়ে পরিচালন ব্যয় হয়েছিল ১১২ কোটি টাকা।
আইডিএলসির ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে আলাপকালে তারা জানান, আইডিএলসি ফাইন্যান্স এককভাবে ভালো করেছে। কিন্তু পুঁজিবাজারে দীর্ঘ মন্দার কারণে সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠানগুলো প্রবৃদ্ধির লক্ষ্য অর্জন করতে না পারায় আইডিএলসির মুনাফা কমেছে। তবে বাজার স্থিতিশীল হলে সাবসিডিয়ারিগুলো তাদের লক্ষ্য অর্জন করার সম্ভাবনা রয়েছে। এর মাধ্যমে আইডিএলসি ঘুরে দাঁড়াবে বলে মনে করছেন তারা।
অন্যদিকে অর্ধবার্ষিক প্রতিবেদন প্রকাশের পর আইডিএলসি ফাইন্যান্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা আরিফ খান বলেন, এককভাবে আইডিএলসি ফাইনান্সের নিট মুনাফায় ১৫ শতাংশ প্রবৃদ্ধি অর্জন করেছে। কিন্তু সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠানগুলোর আয়ে নেতিবাচক প্রভাব পড়ায় মুনাফা কমেছে। তবে পুঁজিবাজার গতিশীল হলেই সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠানগুলো ফের মুনাফায় ফিরবে। এতে আইডিএলসি ফাইন্যান্সের আয়ে ইতিবাচক প্রভাব পড়বে বলে আশা প্রকাশ করেন তিনি।
সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পুঁজিবাজারের দীর্ঘ মন্দার মধ্যে একটি নন-ব্যাংকিং আর্থিক প্রতিষ্ঠান অবসায়নের ঘোষণা দেয়। এতে এ খাতের কোম্পানিগুলোর প্রতি বিনিয়োগকারীরা আস্থা হারিয়েছে। তবে ভবিষ্যতে কোম্পানিগুলো তাদের পারফরমেন্স ভালো করতে পারলে, ভালো লভ্যাংশ ঘোষণা করলে বিনিয়োগকারীরা আস্থা ফিরে পাবে। যা বাজার স্থিতিশীলতায় সহায়ক হবে। এর মাধ্যমে ভালো প্রতিষ্ঠানগুলো ঘুরে দাঁড়াতে সহায়ক হবে। তা নাহলে বিনিয়োগকারীদের ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে।
আইডিএলসি ফাইন্যান্সের শেয়ার দর পর্যালোচনায় দেখা গেছে, গত দুই বছরের মধ্যে সর্বনিম্ন পর্যায়ে লেনদেন হচ্ছে। এর মধ্যে জুনের আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ হওয়ার পর শেয়ার দর অনেকটা পতন ধারায় রূপ নেয়। কোম্পানটির শেয়ার সর্বশেষ ৪৮ টাকা ৫০ পয়সায় লেনদেন হয়েছে।
কোম্পানিটির অনুমোদিত মূলধন ১ হাজার কোটি টাকা, পরিশোধিত মূলধন ৩৭৭ কোটি টাকা। কোম্পানির শেয়ার সংখ্যা ৩৭ কোটি ৭০ লাখ ৫০ হাজার ৭৮০টি। এর মধ্যে উদ্যোক্তাদের কাছে ৫৬ দশমিক ৬৬ শতাংশ, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছে ১৯ দশমিক ৫৯ শতাংশ, বিদেশি বিনিয়োগকারীদের কাছে ১২ দশমিক ৫৭ শতাংশ এবং সাধারণ বিনিয়োগকারীদের কাছে ১১ দশমিক ১৮ শতাংশ শেয়ার আছে।
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৪২৯ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged