কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সার্কুলার জারি : খেলাপি ঋণ তদারকিতে ‘বিশেষ মনিটরিং সেল’ গঠনের নির্দেশ

সময়: মঙ্গলবার, জুলাই ২৩, ২০১৯ ২:৫৮:৩০ পূর্বাহ্ণ


বিশেষ প্রতিনিধি : একশ’ কোটি টাকা কিংবা এর বেশি খেলাপি ঋণ রয়েছে এমন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের ঋণ হিসাবসমূহ নিবিড় তদারকির লক্ষ্যে প্রতিটি তফসিলি ব্যাংকে পৃথক ‘বিশেষ মনিটরিং সেল’ গঠনের নির্দেশ দিয়েছে বাংলাদেশ ব্যাংক। প্রতিটি ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট উপ-ব্যবস্থাপনা পরিচালককে প্রধান করে প্রয়োজনীয় সংখ্যক জনবল নিয়ে এ কমিটি গঠন করতে হবে। ব্যাংক খাতে খেলাপি ঋণ কমিয়ে আনতে ‘ব্যাংক কোম্পানি আইন, ১৯৯১’-এর ৪৫ ধারার ক্ষমতাবলে গতকাল সোমবার এ-সংক্রান্ত একটি সার্কুলার জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সার্কুলারে ‘বিশেষ মনিটরিং সেল’-এর তিন দফা কার্যপরিধি নির্ধারণ করে দেয়া হয়েছে। সার্কুলার অনুযায়ী, বিশেষ তদারকি সেলের কাজ হচ্ছেÑ ১০০ কোটি টাকা ও এর অধিক স্থিতি বিশিষ্ট শ্রেণিকৃত ঋণের আদায় বাড়ানো এবং শ্রেণিকৃত ঋণের পরিমাণ ও খেলাপি ঋণগ্রহীতার সংখ্যা কমিয়ে আনার লক্ষ্যে যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণ করা; ‘১০০ কোটি টাকা ও তদূর্ধ্ব স্থিতি বিশিষ্ট শ্রেণিকৃত ঋণের ত্রৈমাসিক হিসাব’ শীর্ষক ত্রৈমাসিক বিবরণীতে চিহ্নিত শ্রেণিকৃত ঋণ হিসাবসমূহের আদায় অগ্রগতিসহ যাবতীয় তথ্য নিজ নিজ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদকে অবহিত করা এবং প্রণীত ত্রৈমাসিক বিবরণী বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েব পোর্টাল-এ ‘ইডিডব্লিউ’-এর মাধ্যমে প্রতি তিন মাস পর পরবর্তী মাসের শেষ কার্যদিবসের মধ্যে ‘ব্যাংকিং প্রবিধি ও নীতি বিভাগ’-এর ‘টাস্কফোর্স সেল’-এ দাখিল করা; প্রণীত বিবরণীতে চিহ্নিত শ্রেণিকৃত ঋণ পুনঃতফসিলিকরণ কিংবা অন্য কোনো কারণে নিয়মিত বলে গণ্য করা হলেও নিয়মিত হওয়ার তারিখ থেকে পরবর্তী ৮টি ত্রৈমাসিক হিসাব পর্যন্ত এটি বিবরণীতে অন্তর্ভুক্ত রাখা।
কেন্দ্রীয় ব্যাংকের সার্কুলারে আরও বলা হয়েছে, সংশ্লিষ্ট ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে প্রণীত ওই বিবরণীর যথাযথ পর্যালোচনা নিশ্চিত করবে। এক্ষেত্রে ঋণের বকেয়া আদায়ে ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ একটি সময়াবদ্ধ কর্ম-পরিকল্পনা প্রণয়ন করবে এবং ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদ প্রণীত কর্ম-পরিকল্পনার বাস্তবায়ন কার্যক্রম নিয়মিতভাবে পর্যালোচনাপূর্বক প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেবে।

সার্কুলারে বলা হয়েছে, চলতি বছরের অক্টোবর-ডিসেম্বর প্রান্তিক থেকে আগামী বছরের এপ্রিল-জুন ত্রৈমাসিক প্রান্তিক পর্যন্ত প্রণীত এসব বিবরণীর হার্ড ও সফ্ট কপি এক্সেল শিট-এ বাংলাদেশ ব্যাংকে দাখিল করতে হবে এবং আগামী বছরের এপ্রিল-জুন ত্রৈমাসিক প্রান্তিক থেকে প্রণীত বিবরণী বাংলাদেশ ব্যাংকের ওয়েব পোর্টাল-এ ‘ইডিডব্লিউ’-এর মাধ্যমে দাখিল করতে হবে।

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩৭৪ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged