ঘোষণা ছাড়াই ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্সের উদ্যোক্তার ৭ লাখ শেয়ার ক্রয়

সময়: মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০১৯ ৯:৪৭:২৭ পূর্বাহ্ণ


নুরুজ্জামান তানিম/নাজমুল ইসলাম ফারুক : পুঁজিবাজারে বীমা খাতের তালিকাভুক্ত কোম্পানি ‘ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড’-এর উদ্যোক্তা কামালউদ্দিন আহমেদ-এর বিরুদ্ধে কোনো প্রকার ঘোষণা ছাড়াই ৭ লাখের বেশি শেয়ার কেনার অভিযোগ উঠেছে। ঘোষণা ছাড়া শেয়ার কেনার কারণে তিনি সিকিউরিটিজ আইন ও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) লিস্টিং রেগুলেশন লঙ্ঘন করেছেন বলে সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে।
সূত্রমতে, চলতি বছরের ৩১ জুলাই থেকে ৪ আগস্টের মধ্যে উদ্যোক্তা কামালউদ্দিন আহমেদ ৭ লাখ ১ হাজার ৪৯৪টি ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্সের শেয়ার ক্রয় করেন। এসব শেয়ার ক্রয় করার আগে তিনি কোনো ধরনের ঘোষণা দেননি। ফলে ডিএসই’র লিস্টিং রেগুলেশন ২০১৫ এর ৩৪ (১) বিধান এবং সিকিউরিটিজ আইন লঙ্ঘন হয়েছে। এ বিষয়ে কামাল উদ্দিন আহমেদ-এর কাছে ব্যাখ্যা চেয়েছে ডিএসই। পাশাপাশি ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্সের কোম্পানি সচিবকে বিষয়টি অবহিত করা হয়েছে এবং ঘোষণা ছাড়া উদ্যোক্তা কামালউদ্দিন আহমেদ এর শেয়ার কিনতে কেন বাধা দেয়া হয়নি Ñতা জানতে চেয়েছে ডিএসই।
বাজার সংশ্লিষ্টদের মতে, সংবেদনশীল পুঁজিবাজারে উদ্যোক্তা পরিচালকদের ঘোষণা ছাড়া শেয়ার কেনা বা বিক্রি করা এবং মূল্যসংবেদনশীল তথ্য গোপন করে শেয়ার কেনা অনেক বড় অপরাধ। এর মাধ্যমে সাধারণ বিনিয়োগকারীর সঙ্গে প্রতারণা করা হয়। এ সংক্রান্ত অপরাধে শাস্তি হলে বাজারে শৃঙ্খলা আসবে।
প্রসঙ্গত: কোনো কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালক ঘোষণা ছাড়া শেয়ার ক্রয় বা বিক্রয় করতে পারবে না Ñবলে বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) চলতি বছরের ১৫ মে একটি নির্দেশনা জারি করেছে। নির্দেশনায় বলা হয়েছে, ‘সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ অর্ডিন্যান্স, ১৯৬৯’-এর সেকশন ২০এ ধারা অনুযায়ী, উদ্যোক্তা পরিচালক এবং প্লেসমেন্ট শেয়ারহোল্ডারদের শেয়ার সেন্ট্রাল ডিপোজেটরি বাংলাদেশ লিমিটেড (সিডিবিএল) এর সেন্ট্রাল ডিপোজেটরি সিস্টেম এর ব্লক মডিউলে রাখতে হবে। যা শিগগিরই কার্যকর হতে যাচ্ছে। কিন্তু স্টক এক্সচেঞ্জে কর্তৃপক্ষ লক্ষ্য করেছে যে, ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্সের উদ্যোক্তা কামালউদ্দিন আহমেদ ঘোষণা ছ্ড়াাই শেয়ার ক্রয় করেছেন। তবে কোম্পানি কর্তৃপক্ষ তার এ অনৈতিকভাবে শেয়ার কেনায় বাধা দেয়নি। এর ফলে কোম্পানির উদ্যোক্তা সিকিউরিটিজ আইন ও ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) লিস্টিং রেগুলেশন লঙ্ঘন করেছে। একইসঙ্গে কোম্পানিটি কমপ্লায়েন্স পরিপালন করতে ব্যর্থ হয়েছে।
জানা গেছে, কিছু কোম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালক ঘোষণা ছাড়াই শেয়ার ক্রয় বা বিক্রি করছেন। এতে কিছু ব্রোকারেজ প্রতিষ্ঠান আইন পরিপালন না করে ওইসব উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের শেয়ার বিক্রি করে দিচ্ছেন। আবার ইস্যুয়ার কোম্পানি উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের শেয়ার ব্লক না রেখে আইন ভঙ্গ করছে। অনেক সময় কোম্পানির মূল্যসংবেদনশীল তথ্য গোপন করে ইনসাইডার ট্রেডিং করা হচ্ছে। সে ক্ষেত্রে মূল্য সংবেদশীল তথ্য আংশিক প্রকাশ, গোপন করা, দেরিতে প্রকাশ করার মতো ঘটনা ঘটছে। যা সরাসরি আইনের লঙ্ঘন।
এ বিষয়ে ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের কোম্পানি সচিব এম আবিদুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তার মুঠোফোন বন্ধ পাওয়া যায়।
এদিকে বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত কোম্পানির উদ্যোক্তা ও পরিচালকদের ঘোষণা ছাড়া শেয়ার কেনা ও বেচার এবং মূল্যসংবেদনশীল তথ্য গোপন করার বিষয়ে আরো কঠোর অবস্থানে যাচ্ছে বিএসইসি। সংস্থাটি ইতোমধ্যে ডিএসই’র কাছে গত ১৯ মার্চ থেকে ১৯ জুলাই পর্যন্ত সময়ে ঘাষণা ছাড়া শেয়ার কেনা ও বেচার এবং মূল্যসংবেদনশীল তথ্য গোপন করার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানগুলোর বিস্তারিত প্রতিবেদন চেয়েছে।
ইতোমধ্যে পুঁজিবাজারের তালিকাভুক্ত কোম্পানি ফার্মা এইডস, ফরচুন সুজ, আলহাজ্ব টেক্সটাইল, বাংলাদেশ ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্স কোম্পানিসহ আরো বেশ কয়েকটি কোম্পানি এ আইন লঙ্ঘনের তালিকায় রয়েছে। ইতোমধ্যে আলহাজ্ব টেক্সটাইলকে শাস্তির আওতায় এনেছে বিএসইসি।
এ বিষয়ে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিএসইসি’র একজন কর্মকর্তা ‘দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন’-কে বলেন, কমিশন ইতোমধ্যে কয়েকটি কোম্পানিকে এ ধরনের আইন ভঙ্গের সঙ্গে সম্পৃক্ততা পেয়েছে। গত কমিশন সভায় একটি কোম্পানিকে ইতোমধ্যে শাস্তির আওতায় আনা হয়েছে। যেসব কোম্পানি এ ধরনের অপরাধের সঙ্গে জড়িত; কমিশনের পক্ষ থেকে সেসব কোম্পানির বিস্তারিত তথ্য চাওয়া হয়েছে।
বিষয়টি নিয়ে পুঁজিবাজার বিশ্লেষক অধ্যাপক আবু আহমেদ ‘দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন’ -কে বলেন, ‘যেসব কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকরা ঘোষণা ছাড়া শেয়ার বিক্রি করছে, আবার অনেকে মূল্যসংবেদনশীল তথ্য গোপন করছে; এগুলো শাস্তিযোগ্য অপরাধ। এসব কোম্পানির উদ্যোক্তা পরিচালকদের শাস্তি হওয়া উচিত।’
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৪৬৬ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged