চার কারণে পুঁজিবাজারে মন্দা ও দুর্দশা : মির্জা আজিজ

সময়: মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯ ৯:০৮:১২ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের পুঁজিবাজারের বর্তমান মন্দা ও দুর্দশার জন্য চারটি বিষয়কে দায়ী মনে করেন সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা এবং পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিএসইসি’র প্রাক্তন চেয়ারম্যান ড. এ বি মির্জা আজিজুল ইসলাম। এগুলো হচ্ছে- বাজারে ভালো আইপিও না আসা, নিরীক্ষা প্রতিবেদন নির্ভরযোগ্য না হওয়া, নিয়ন্ত্রক সংস্থাগুলোর সমন্বয়হীনতা ও ব্যাংকিং খাতের নাজুক অবস্থা।

গতকাল সোমবার আগারগাঁওয়ে পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের এনইসি সম্মেলন কক্ষে রেগুলেটর ও স্টেকহোল্ডারদের সঙ্গে অর্থমন্ত্রীর মতবিনিময় সভা থেকে বের হয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

মির্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘আমি মূলত চারটি বিষয়ে ওপর গুরুত্বারোপ করেছি। প্রথমত: বাজারের জন্য ভালো আইপিও খুব জরুরি। দেশি ও বিদেশি সব ধরনের ভালো কোম্পানিকে বাজারে আনার চেষ্টা করতে হবে। আইপিওর মান নিশ্চিত করতে হবে।

দ্বিতীয়ত: বিভিন্ন রেগুলেটরি সংস্থার মধ্যে সমন্বয়ের অভাবে কোন কোন সময় বাজারে একটা নেতিবাচক প্রভাব পড়ে। যেমন বর্তমানে বিটিআরসির সঙ্গে গ্রামীণফোনের একটা ঝামেলা চলছে, এগুলো সমাধান করা দরকার।

তৃতীয়ত: আইপিও’র ক্ষেত্রে যে কোম্পানি যে অ্যাকাউন্টস দেখিয়ে অনুমোদন নেয়, সেগুলো অনেক ক্ষেত্রেই নির্ভরযোগ্য নয়। এগুলোতে কোম্পানির প্রকৃত চিত্র উঠে আসে না। হিসাব কারসাজির মাধ্যমে কোম্পানির ভালো চিত্র দেখানো হয়, যার ফলে ইস্যু আসার সময় দাম অনেক বেশি থাকলেও অল্প কিছুদিন পরে দাম পড়ে যায়।

চতুর্থত: বর্তমানে ব্যাংকিং খাতে যে নাজুক অবস্থা বিরাজ করছে, তার থেকে উত্তরণ না হলে পুঁজিবাজারে প্রত্যাশিত গতি আসবে না।

আরেক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, সমস্যা যখন জানবেন, উত্তরণের বিষয়ও জানবেন। প্রথমত: দরকার রেগুলেটরি সংস্থার মধ্যে সমন্বয়। ব্যাংকিং সেক্টরের বর্তমান পরিস্থিতি থেকে উত্তোরণ না হলে এটা একটা বড় সমস্যা হবে। তাই এটাকে ঠিক করতে হবে।
অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যের বিষয়ে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সাবেক এ উপদেষ্টা বলেন, ‘অর্থমন্ত্রী আন্তরিকভাবে চান বাজার কীভাবে উঠতে পারে।’

সকল বীমা কোম্পানিকে ৩ মাসের মধ্যে পুঁজিবাজারে আসতে হবে- অর্থমন্ত্রীর এ বক্তব্যের বিষয়ে জানতে চাইলে মীর্জা আজিজুল ইসলাম বলেন, ‘তিন মাসের মধ্যে একেবারে লিস্টেড না হলেও তারা তো আবেদন করবে। আবেদন করলে তারপরে অন্যান্য বিষয়।’

নিয়মতান্ত্রিকভাবে পুঁজিবাজারে আসতে কত সময় লাগে- এ প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘এটা নির্ভর করে তাদের যে রিপোর্ট আছে, সেগুলো কতটা বিশ্বাসযোগ্য তার ওপর। এগুলো যদি ঠিক থাকে তাহলে দুই থেকে তিন মাসের মধ্যে আসা সম্ভব।’

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩৯৬ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged