ভ্যাট আদায় মেশিন বসছে ডিসেম্বরে

ছয় মাসে রাজস্ব যতটা লস হবে, পরে সেটা আদায় করে নেবো : অর্থমন্ত্রী

সময়: বৃহস্পতিবার, নভেম্বর ২৮, ২০১৯ ১০:৪৫:২১ পূর্বাহ্ণ


বিশেষ প্রতিনিধি : রাজস্ব আদায়ে প্রবৃদ্ধির মূল জায়গা হচ্ছে মূল্যসংযোজন কর (ভ্যাট)। কিন্তু অন-লাইনে ভ্যাট আদায়ের জন্য আমরা এখনো মেশিন-ই (ইলেক্ট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস) বসাতে পারিনি বলে জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।
গতকাল বুধবার সচিবালয়ে ‘সরকারি ক্রয়-সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’র সভাশেষে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।
‘রাজস্ব আদায় নিয়ে কোনো চিন্তার বিষয় আছে কি না’Ñ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আয়কর খাতে রাজস্ব অনেক বেড়েছে। ট্যাক্স রেভিনিউ কম আছে। তবে নির্ধারিত সময়ের সেটা আমরা পূরণ করতে পারবো। বছরের শেষে আমরা রাজস্ব আদায়ে যে লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা আছে সেটা অর্জন করতে পারবো।’
‘গত তিন মাসে রাজস্ব আদায়ের প্রবৃদ্ধি ভালো না’ Ñএমন কথার জবাবে তিনি বলেন, ‘প্রবৃদ্ধিটা বেশি হচ্ছে না, তবে সেটা হবে। রাজস্ব আয়ে প্রবৃদ্ধির মূল জায়গা হচ্ছে ভ্যাট। কিন্তু ভ্যাট আদায়ের জন্য আমরা এখনো মেশিনই বসাতে পারিনি। মেশিন বসালে আমরা জনবল দিতাম, তারপর ভ্যাট আদায় করতাম।’
তিনি বলেন, ‘এনবিআর-এর পক্ষ থেকে আমাকে কিন্তু জানানো হয়েছে জুলাই মাসের ১ এক তারিখ থেকে মেশিনগুলো সরবরাহ করা হবে। কিন্তু দুঃখজনক হলো এখনো আমরা মেশিনগুলো পাইনি। আমি আশা করি এখন মেশিন আসবে, এনবিআর চেয়ারম্যান বলেছেন আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই মেশিন সরবরাহ করা হবে।’
‘ডিসেম্বরে হলে ইতোমধ্যে অর্থবছরের ছয় মাস পার হয়ে যাবে। তারপর এ ক্ষতি পূরণ করা কি সম্ভব’Ñ এমন প্রশ্নের জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন, ‘ছয় মাসে চলে যাবে এটা আমিও জানি, আপনিও জানেন। কিন্তু আমি তো উনাকে (এনবিআর চেয়ারম্যান) বিশ্বাস করেছিলাম। শপথ নিয়ে প্রথমেই এ বিষয়ে কথা বলেছিলাম। তিনি সেদিন-ই বলেছিলেন জুলাই মাসে প্রথমেই মেশিনগুলো সরবরাহ করবে। কিন্তু সেটা হয়নি।’
‘উনার না-পারাটা আপনার না-পারা হিসেবে গণ্য হবে’Ñ এমন কথার জবাবে অর্থমন্ত্রী বলেন ‘আমি অস্বীকার করছি না। এক্ষেত্রে বাংলাদেশ লস করেছে। বাংলাদেশ এ ব্যাপারে অনেক ক্ষেত্রেই লস করেছে। তবে বছর শেষে প্রত্যেকটা খাতেই সফলতার স্বাক্ষর থাকবে। প্রথম ছয় মাসে রাজস্ব যতটা লস করবো, পরের ছয় মাসে সেটা আদায় করে নেবো।’
উল্লেখ্য, গত ২৪ জুলাই অন-লাইনে মূল্যসংযোজন কর (ভ্যাট) আদায়ে এক লাখ ইলেক্ট্রনিক ফিসক্যাল ডিভাইস (ইএফডি), ৫০০ ইউনিট সেলস ডাটা কন্ট্রোলার (এসডিসি) এবং ফিসক্যাল ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম (ইএফডিএমএস) কিনার একটি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়েছিল। এতে সরকারের ব্যয় ধরা হয় ৩১৫ কোটি ৮৮ লাখ ২১ হাজার ৯৫৭ কোটি টাকা। এ সংক্রান্ত একটি ক্রয় প্রস্তাবের অনুমোদন দেয়া হয়। কিন্তু ডিভাইসগুলো এখন আসেনি।
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩২০ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged