কারেকশন সূচক লেনদেন dse-cse

ধারাবাহিক দরপতনে বাড়ছে আস্থা সঙ্কটে

সময়: সোমবার, জুলাই ২২, ২০১৯ ১:৪৪:০৫ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিনিধি : ধারবাহিক পতনে তলানীতে অবস্থান করছে সূচক। এতে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আস্থ্ াসঙ্কট বাড়ছে। কারণ দিন যতই যাচ্ছে লোকসানের পরিমাণ ততই বাড়ছে। যে কারণে বিনিয়োগকৃত পুঁজি ফেরত পাওয়া নিয়ে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে।
এদিকে, সপ্তাহের দ্বিতীয় কার্যদিবসে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সূচকের পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন লেনদেন শেষে সূচকের পাশাপাশি কমেছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর। তবে টাকার অংকে লেনদেন আগের দিনের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে। আজ ডিএসইতে লেনদেন হয়েছে ৪৬৪ কোটি ১৮ লাখ ৫২ হাজার টাকা।
বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, আজ ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ৬৭ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৪৯৬৬ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ১৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১১৩৯ পয়েন্টে এবং ডিএসই ৩০ সূচক ২৩ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৭৭৬ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ৩৫৩টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ৬০টির, কমেছে ২৭৭টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ১৬টির। আর দিন শেষে লেনদেন হয়েছে ৪৬৪ কোটি ১৮ লাখ ৫২ হাজার টাকা।
এর আগের কার্যদিবস দিন শেষে ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স ৯৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ৫০৩৩ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ১৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ১১৫৭ পয়েন্টে এবং ডিএসই ৩০ সূচক ৩০ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ১৭৯৯ পয়েন্টে। আর ওইদিন লেনদেন হয়েছিল ৩৬৮ কোটি ৬৪ লাখ ১৮ হাজার টাকা। সে হিসেবে আজ ডিএসইতে লেনদেন বেড়েছে ৯৫ কোটি ৫৪ লাখ ৩৪ হাজার টাকা।
অন্যদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) আজ দ্বিতীয় কার্যদিবসেও সূচকের অস্বাভাবিক পতন হয়েছে। লেনদেনের শুরু থেকেই সূচকের তীর ছিল নিচের দিকে। যদিও পরবর্তীতে সূচকের গতি কিছুটা পরিবর্তন হয়। কিন্তু দিন শেষে সূচক পতন ছিল অস্বাভাবিক। একই সঙ্গে কমেছে লেনদেন হওয়া বিভিন্ন কোম্পানির শেয়ারদর। তবে টাকার অঙ্কে আজও মোট লেনদেন আগের কার্যদিবস অর্থাৎ রবিবারের তুলনায় সামান্য বেড়েছে।
দিন শেষে সিএসই সার্বিক সূচক আজ ২০০ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৫ হাজার ২১৫ পয়েন্টে। অন্যদিকে সিএসইএক্স সূচক ১১৫ পয়েন্ট কমে ৯ হাজার ২৫৭ পয়েন্টে নেমে আসে।
সিএসইতে মোট ২৮৬টি কোম্পানির লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৪৮টির কমেছে ২১৬টির আর অপরিবর্তিত ছিল ২২ কোম্পানির শেয়ার দর। আর দিন শেষে ৮৮ লাখ ২৫ হাজার ৯৬৮টি শেয়ার ৮ হাজার ৭৮৫ বার হাত বদল হয়। টাকার অঙ্কে মোট মূল্য ছিল ২১ কোটি ১৭ লাখ ৩৬ হাজার ৯০৩ টাকা। যা আগের কার্যদিবসের তুলনায় ৪ কোটি ৭ লাখ ২৩ হাজার ৫৭৮ টাকা বেশি। আগের দিন মোট লেনদেন হয়েছিল ১৭ কোটি ১০ লাখ ১৩ হাজার ৩২৫ টাকা। সিএসইতে টপটেন গেইনারের ১০ কোম্পানির মধ্যে শীর্ষে ছিল এসইএমএল আইবিবিএল শরীয়া ফান্ড। এর দর বেড়েছে ৯.৬৪ শতাংশ। ৯.৫২ শতাংশ দর বেড়ে দ্বিতীয় অবস্থানে ছিল আইসিবি এএমসিএল সোনালি ব্যাংক ফাস্ট মিউচ্যুয়াল ফান্ড। অন্যদিকে দর হারানোর দিক থেকে শীর্ষে ছিল বেক্সিমকো সিনথেটিস। এ কোম্পানির দর কমেছে ১০ শতাংশ।

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩৪৯ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged