পর্ষদ পুনর্গঠনে ব্যর্থ হলে উদ্যোক্তা-পরিচালকদের শেয়ার জব্দ

সময়: বুধবার, আগস্ট ২৮, ২০১৯ ৫:৪১:১৫ পূর্বাহ্ণ


সালাহ উদ্দিন মাহমুদ : পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ‘জেড’ ক্যাটাগরির কোম্পানিতে উদ্যোক্তা-পরিচালকদের শেয়ার ফ্রিজ বা জব্দ করার বিধান রেখে বিধিমালা সংশোধন করতে যাচ্ছে ‘বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন’ (বিএসইসি)। ‘জেড’ ক্যাটাগরির কোম্পানিটিকে ৪৫ কার্যদিবসের মধ্যে পর্ষদ পুনর্গঠন করতে হবে। শিগগিরই এ বিধিমালা চূড়ান্ত হবে। বিএসইসি সূত্রে এই তথ্য জানা গেছে।
চলতি বছরের এপ্রিল মাসে ‘জেড’ ক্যাটাগরির কোম্পানিগুলোকে নিয়ে ২০০২ সালের নোটিফিকেশন পরিবর্তনের উদ্যোগ নেয় বিএসইসি। এর পরিপ্রেক্ষিতে বিএসইসি’র পরিচালক মো. মনসুর রহমান-কে আহ্বায়ক করে তিন সদস্যের কমিটি গঠন করে কমিশন। কমিটির অপর সদস্যরা হলেন- উপপরিচালক শেখ মো. লুৎফুল কবির এবং উপপরিচালক মো. নজরুল ইসলাম।
এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএসইসি’র নির্বাহী পরিচালক ও মুখপাত্র মো. সাইফুর রহমান ‘দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন’-কে বলেন, ‘জেড ক্যাটাগরি নিয়ে বিএসইসি’র গঠিত কমিটি কাজ করছে। এখনও কমিটির প্রতিবেদন দাখিলের সময় রয়েছে। আশা করছি, নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কমিটি তার প্রতিবেদন দাখিল করবে। প্রতিবেদন দাখিলের পর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে কমিশন।’
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা যায়, যেসব কোম্পানি এক বছরের অধিক সময় ধরে ‘জেড’ ক্যাটাগরিতে অবস্থান করছে, সেসব কোম্পানি স্পট মার্কেটে লেনদেন হবে। এসব কোম্পানির পর্ষদ ৪৫ কার্যদিবসের মধ্যে পুনর্গঠন করতে হবে। এ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে কোম্পানির পর্ষদ পুনর্গঠন করতে ব্যর্থ হলে উদ্যোক্তা পরিচালকদের সব শেয়ার (প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ) ফ্রিজ বা জব্দ করে রাখা হবে। যতদিন পর্যন্ত বোর্ড পুনর্গঠন না হবে, ততদিন এ শেয়ার ফ্রিজ থাকবে।
এখানে পর্ষদ পুনর্গঠনের ৬ মাসের মধ্যে কোম্পানির ব্যর্থতা, সম্ভাবনা, কোনো ব্যক্তি এর জন্য দায়ী সার্বিক বিষয় শনাক্ত করতে হবে। এজন্য উপযুক্ত পদক্ষেপ নিতে হবে। শনাক্ত হওয়া ব্যক্তির বিরুদ্ধে আইনি পদক্ষেপও নিতে হবে। কোম্পানির আর্থিক অবস্থার উন্নতির জন্য একটি বিশেষ প্রতিবেদন প্রস্তুত এবং বিস্তারিত কর্মপরিকল্পনা বা ব্যবসায়িক পরিকল্পনা জমা দিতে হবে। এসব পরিকল্পনাসহ সার্বিক বিষয় কোম্পানির পরবর্তী বার্ষিক সাধারণ সভায় শেয়ারহোল্ডারদের থেকে অনুমোদন করে নিতে হবে। শেয়ারহোল্ডারদের অনুমতি ছাড়া কোম্পানির কোনো সম্পদ বিক্রি বা হস্তান্তর করা যাবে না। কোম্পানির বোর্ডসভার তথ্য স্টক এক্সচেঞ্জে দাখিল করতে হবে।

যদি কোম্পানির পুনর্গঠিত বোর্ড তিন বছরের মধ্যে পরিচালনা এবং আর্থিক অবস্থার উন্নতি ঘটাতে না পারে তবে স্টক এক্সচেঞ্জ লিস্টিং রেগুলেশন অনুযায়ী কোম্পানিটির ডিলিস্টিং প্রক্রিয়ার বিষয়ে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করবে।
এর আগে ‘জেড’ ক্যাটাগরির কোম্পানির বিষয়ে বিএসইসি ২০০২ সালে ১ আগস্ট একটি নির্দেশনা জারি করে। যেখানে বলা হয়, টানা দুই বছর লভ্যাংশ প্রদানে ব্যর্থ ‘জেড’ ক্যাটাগরির কোম্পানিকে ছয় মাসের মধ্যে পর্ষদ পুনর্গঠন করতে হবে। নতুন পর্ষদে উদ্যোক্তা, প্রাতিষ্ঠানিক এবং ব্যক্তি শ্রেণির সাধারণ বিনিয়োগকারীদের অনুপাতে পরিচালক নির্বাচন করতে হবে। এক্ষেত্রে উদ্যোক্তা বা সাবেক পরিচালক বা কোম্পানির সাবেক কর্মকর্তা বা ব্যবসায়িক স্বার্থ সংশ্লিষ্ট কোনো ব্যক্তি বা তাদের আত্মীয়দের কেউ প্রাতিষ্ঠানিক বা সাধারণ বিনিয়োগকারীদের পক্ষে পরিচালক হতে পারবেন না। এ ছাড়া কোম্পানির মালিকানায় উদ্যোক্তাদের অংশ ৫০ শতাংশের কম হলে তাদের বাইরে অন্য কাউকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করতে হবে। একই সঙ্গে ব্যবস্থাপনা পরিচালক পদে পেশাদার ব্যক্তিকে নিয়োগ দিতে হবে। নতুন পর্ষদ দায়িত্ব গ্রহণের দুই মাসের মধ্যে কোম্পানির ব্যবসা ও মুনাফা প্রত্যাশিত পর্যায়ে উন্নীত করতে ব্যর্থ হলে পরের ছয় মাসের মধ্যে অন্য কোনো লাভজনক কোম্পানির সঙ্গে একীভূত বা অবসায়ন করবে।
সূত্র আরো বলছে, বিএসইসি’র গঠিত কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে কমিশন নতুন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবে। এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি হলে আগের নির্দেশনা বাতিল হয়ে যাবে। ‘জেড’ ক্যাটাগরির কোম্পানিগুলোকে নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী আইন পরিপালন করতে হবে।
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩৭৪ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged