পুঁজিবাজারের উন্নতি না হওয়ার মূলে বহুমুখী প্রোডাক্টের অভাব : বিএসইসি চেয়ারম্যান

সময়: শুক্রবার, অক্টোবর ৪, ২০১৯ ১:৫৬:৫১ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : বর্তমান স্তর থেকে পুঁজিবাজারের উন্নতির প্রধান অন্তরায় হিসেবে ‘বহুমুখী প্রোডাক্টের অভাব’-কে দায়ী করেছেন নিয়ন্ত্রক সংস্থা ‘বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন’ (বিএসইসি)-এর চেয়ারম্যান ড. এম খায়রুল হোসেন। তিনি মনে করেন, বাজারে বহুমুখী পণ্য থাকলে, বিনিয়োগকারীর বিকল্প বিনিয়োগের জায়গাটা তৈরি হবে। এতে অনেক ক্ষেত্রে ঝুঁকি কমে আসবে।
গতকাল বৃহস্পতিবার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে বিএসইসি ভবনে বিশ্ব বিনিয়োগকারী সপ্তাহ-২০১৯ উপলক্ষে আয়োজিত এক সেমিনারে তিনি এ কথা বলেন। ‘দীর্ঘমেয়াদি অর্থায়ন উপকরণে সম্ভাবনা ও চ্যালেঞ্জ’ শীর্ষক এ সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, ‘আমাদের দেশের শেয়ারবাজার এখন যে স্টেজে রয়েছে; সেখান থেকে উন্নয়নের ক্ষেত্রে প্রধান অন্তরায় হচ্ছে বহুমুখী প্রোডাক্টের অভাব। এখানে ফিক্সড ইনকাম সিকিউরিটিজ, ডেরিভেটিভসহ কমোডিটি মার্কেট নেই। বাজারে বহুমুখী প্রোডাক্ট থাকলে বিনিয়োগকারীর বিনিয়োগে ভিন্নতা আসে।’
তিনি বলেন, ‘বিনিয়োগকারীর জন্য অল্টারনেটিভ বাক্সেটটি আরো সম্প্রসারিত হলে তার রিস্কের মাত্রাটা কমে যাবে। বিএসইসি বেশ কিছু নতুন প্রোডাক্ট বাজারে আনতে কাজ করছে। যা আগামী জুনের মধ্যে বাজারে আসবে। প্রোডাক্টগুলো বাজারে যুক্ত হলে বিনিয়োগকারীর বিকল্প বিনিয়োগ ব্যবস্থা তৈরি হবে।’
তিনি আরও বলেন, ‘বিনিয়োগকারীদের চয়েজের জায়গাটি সীমিত। অর্থাৎ বিনিয়োগকারীদের লেভেল অব ইনভেস্টমেন্ট নলেজ; যার মাধ্যমে তারা বিনিয়োগ করে থাকেন, এটা সীমিত। কাজেই একাডেমির কাজই হলো সেই নলেজ বেজ বৃদ্ধিতে কাজ করা। পাশপাশি তাদের শিক্ষিত করে গড়ে তোলা, যাতে পুঁজির চেয়েও এই নলেজটা তার ইনভেস্টমেন্টের ক্ষেত্রে মুনাফা অর্জনে সবচেয়ে বড় ক্যাপিটাল হিসেবে আর্বিভূত হয়।’
বিএসইসির চেয়ারম্যান বলেন, ‘ব্যক্তিগতভাবে আমরা সারা পৃথিবী থেকে অনেক জ্ঞান অর্জন করতে পারবো। কিন্তু একটা একাডেমি থাকার মানে হলো সবচেয়ে লেটেস্ট টেকনোলজি কী, নতুন প্রোডাক্ট কী আসছে, এখানে বিনিয়োগকারীদের জন্য কী আছে, নতুন ধরণের কারসাজি পদ্ধতি ও সনাক্তকরণ এবং তার বিরুদ্ধে কী পদক্ষেপÑ এগুলো একাডেমির মাধ্যমে শেখা যায়।
সারা পৃথিবীতে নতুন নতুন যে জ্ঞানের সৃষ্টি হয়, সেই জ্ঞানকে একসাথে করে একাডেমির মাধ্যমে দেশের মানুষের কাছে উপস্থাপন করা, নতুন স্কিল, ম্যানপাওয়ার মার্কেটের চাহিদা অনুযায়ী সরবরাহ করা এবং নিজেরা গবেষণা করে এমন কিছু উদ্ভাবন করা যাতে করে মার্কেটের বিকাশ ত্বরান্বিত হয়। সেই উদ্দেশ্যেই একাডেমি প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, পৃথিবীর অন্যান্য দেশে পুঁজিবাজারে যেসব সমস্যা সনাক্ত করেছে এবং সেই সনাক্ত হওয়া সমস্যাকে কীভাবে এড্রেস করেছে, সেই অভিজ্ঞতার আলোকে নিজেদের শিক্ষিত করতে হবে। একইসাথে সকলে সম্মিলিতভাবে পুঁজিবাজারকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করতে হবে।
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩৭৫ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged