পুঁজিবাজারে বীমা খাত : প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ কমলেও বেড়েছে ব্যক্তি বিনিয়োগ

সময়: মঙ্গলবার, আগস্ট ৬, ২০১৯ ৬:২২:১০ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : বীমা খাতের প্রতিষ্ঠানগুলো ব্যাপক হারে বিনিয়োগ কমিয়েছে। গত জুনে এ খাত থেকে প্রায় ৩৬ ভাগ বিনিয়োগ তুলে নিয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। তবে একই মাসে খাতটিতে ব্যক্তি বিনিয়োগ ৩৭ শতাংশের বেশি বেড়েছে। দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) হালনাগাদ উপাত্ত বিশ্লেষণে এই তথ্য পাওয়া গেছে।
বাজার বিশ্লেষণে দেখা যায়, জানুয়ারি মাসে অন্যান্য খাতের সঙ্গে চাঙ্গা হয়ে ওঠে বীমা খাত। এই খাতের অধিকাংশ কোম্পানির সূচক রেকর্ড উচ্চতায় ওঠে। এরপর ফেব্রুয়ারি থেকে এপ্রিল পর্যন্ত টানা দরপতন হয় বীমা কোম্পানির শেয়ারে। মে মাস থেকে বীমা খাত আবার ঊর্ধ্বমুখী হলে জুন মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা ব্যাপক হারে শেয়ার ছাড়া শুরু করেন। আর এই সময়ে ব্যক্তি বিনিয়োগকারীরা হুড়মুড় করে ঢুকতে থাকেন বীমা খাতে। মে মাসে যেসব কোম্পানির শেয়ারদর ঊর্ধ্বমুখী ছিল, জুন মাসে সেসব শেয়ার ব্যাপক হারে কিনে নিয়েছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। জুন মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা বীমা খাতের সার্বিকভাবে ৮৫ কোটি ৯৩ লাখ শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছেন। অর্থাৎ জুন মাসে তারা যে পরিমাণ শেয়ার ক্রয় করেছেন, তার তুলনায় শেয়ার বেশি বিক্রি করেছেন। আর এই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা যে পরিমাণ শেয়ার বিক্রয় করেছেন, তার তুলনায় ৯০ কোটি ৯১ লাখ শেয়ার বেশি ক্রয় করেছেন।
বাজার সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, চলতি বছরের প্রথমার্ধে বিনিয়োগকারীরা বীমা খাত থেকেই সর্বোচ্চ রিটার্ন (২৪ দশমিক ৭০ শতাংশ) পেয়েছে। এছাড়া নতুন অর্থবছরের বাজেটে বীমা খাতের জন্য বিপুল সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। এসবই মূলত ব্যক্তি বিনিয়োগকে ব্যাপকভাবে আকৃষ্ট করেছে।
জুনের শুরুতে ঘোষিত বাজেটে গবাদিপশু ও কৃষি খাতকে সাধারণ বীমার আওতায় নিয়ে আসা হয়। এছাড়া সরকারি চাকরিজীবীদের জন্য সমন্বিত জীবন বীমা ও প্রবাসীদের জন্য জীবন বীমা চালু করার ঘোষণা দেয়া হয়। এসব ঘোষণা সাধারণ ও জীবন বীমা কোম্পানিগুলোর ব্যবসার পরিধি বাড়ানোর জন্য ব্যাপক সুযোগ তৈরি করেছে।
জুনের হিসেবে দেখা গেছে, প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা কন্টিনেন্টাল জেনারেল ইন্স্যুরেন্সের ২ দশমিক ২ শতাংশ শেয়ার ছেড়ে দিয়েছেন। একই সময়ে উদ্যোক্তা পরিচালকরাও ১ দশমিক ৯৫ শতাংশ শেয়ার ছেড়ে দিয়েছেন। এই পুরো শেয়ারই কিনে নিয়েছেন সাধারণ ব্যক্তি বিনিয়োগকারীরা।
ইস্টল্যান্ড ইন্স্যুরেন্সে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ারধারণ ৪ দশমিক ২৭ শতাংশ কমেছে। যার পুরোটাই গেছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে। ফেডারেন্স ইন্স্যুরেন্সের ৪ শতাংশ শেয়ার ছেড়ে দিয়েছেন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। এর মধ্যে প্রায় ৩ দশমিক ৬১ শতাংশ শেয়ার কিনে নিয়েছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। বাকিটা গেছে উদ্যোক্তা পরিচালকদের হাতে। একইভাবে গ্লোবাল ইন্স্যুরেন্সে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ার ধারণের পরিমাণ ৭ দশমিক ৭৩ শতাংশ কমেছে। একই পরিমাণ শেয়ারধারণ বেড়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের। আলোচ্য মাসটিতে প্যারামাউন্ট ইন্স্যুরেন্সের ৮ শতাংশ শেয়ার ছেড়ে দিয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। এরমধ্যে ৪ শতাংশ কিনে নিয়েছেন বিদেশি বিনিয়োগকারীরা। এই প্রতিষ্ঠানটির শেয়ারে এটাই বিদেশিদের প্রথম বিনিয়োগ। বাকি ৪ শতাংশ শেয়ার গেছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে।
জনতা ইন্স্যুরেন্সের ৩ দশমিক ৭ শতাংশ শেয়ার বিক্রি করে দিয়েছেন প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। যার পুরোটাই সাধারণ বিনিয়োগকারীরা কিনে নিয়েছেন। একইভাবে মার্কেন্টাইল ইন্স্যুরেন্সের ১ দশমিক ৫৫ শতাংশ শেয়ার প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের হাত থেকে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে গেছে।
জুন মাসে পিপলস ইন্স্যুরেন্সের ৪ দশমিক ৭৩ শতাংশ শেয়ার প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের হাত থেকে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে গেছে। একইভাবে প্রভাতী ইন্স্যুরেন্সের ৩ দশমিক ৯২ শতাংশ শেয়ার প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের হাতে গেছে। রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সে ১ দশমিক ১৪ শতাংশ বিনিয়োগ কমিয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। এই পরিমাণ বিনিয়োগ বেড়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের। একইভাবে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের শেয়ারধারণ স্টান্ডার্ড ইন্স্যুরেন্সে ১ দশমিক ১২ শতাংশ, রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্সে দশমিক ৭৭ শতাংশ, রূপালী ইন্স্যুরেন্সের দশমিক ৭২ শতাংশ কমেছে। একই হারে বেড়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের শেয়ারধারণ।
জুন মাসে ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের ৮ দশমিক ৭৯ শতাংশ শেয়ার ছেড়ে দিয়েছেন উদ্যোক্তা পরিচালকরা। এর প্রায় পুরোটাই কিনেছেন সাধারণ বিনিয়োগকারীরা। পূরবী জেনারেল ইন্স্যুরেন্সেরও ৫ দশমিক ১৬ শতাংশ শেয়ারধারণ কমেছে উদ্যোক্তা পরিচালকদের। এই পরিমাণ শেয়ারধারণ বেড়েছে সাধারণ বিনিয়োগকারীদের।
এর মধ্যে কিছু কিছু ইন্স্যুরেন্সে বিনিয়োগ বাড়িয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা। জুন মাসে অগ্রণী ইন্স্যুরেন্সে ১ দশমিক ৭ শতাংশ, বাংলাদেশ জেনারেল ইন্স্যুরেন্সে ২ দশমিক ৯৩ শতাংশ, ঢাকা ইন্স্যুরেন্সে ১ দশমিক ৩৯ শতাংশ, মেঘনা লাইফে ১ দশমিক ১৬ শতাংশ, ইউনাইডেট ইন্স্যুরেন্সে ৩ দশমিক ২৯ শতাংশ বিনিয়োগ বাড়িয়েছে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা।

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩৯৬ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged