বিদেশি পুনঃবীমাকারীর রেটিং স্ট্যাটাস কমপক্ষে ‘বি’ হতে হবে

সময়: বুধবার, অক্টোবর ৩০, ২০১৯ ৯:২৩:০৭ পূর্বাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশি বা বিদেশি পুনঃবীমাকারীর নাম, পুনঃবীমার অংশ এবং তাদের সাইন্ড সিøপের কপি ‘বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ’ (আইডিআরএ) বরাবর পাঠাতে হবে। এক্ষেত্রে বিদেশি পুনঃবীমাকারীদের রেটিং স্ট্যাটাস কমপক্ষে ‘বি’ হতে হবে। সম্প্রতি এমন নির্দেশনা দিয়ে দেশের সব সাধারণ বীমা কোম্পানি বরাবর একটি প্রজ্ঞাপন জারি করেছে নিয়ন্ত্রণ সংস্থা আইডিআরএ।
প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, একই স্থানে অবস্থিত প্রতিটি বীমা ঝুঁকির শতভাগ একক বীমা অংক যদি কান্ট্রি-লিমিট অতিক্রম করে, সেক্ষেত্রে দেশি অথবা বিদেশি পুনঃবীমাকারীর কাছ থেকে প্রিমিয়াম হার ও শর্তাবলী সংগ্রহ করা যাবে, তবে তা অবশ্যই কর্তৃপক্ষ কর্তৃক ভেটিং করাতে হবে। এছাড়াও কান্ট্রিলিমিট অতিক্রম করায় দেশি বা বিদেশি পুনঃবীমাকারীর কাছ থেকে সংগৃহীত প্রিমিয়াম হার অনুযায়ী বীমাপত্র ইস্যু করা হলে বীমা ঝুঁকি গ্রহণের ৩০ দিনের মধ্যে তা কর্তৃপক্ষকে অবহিত করতে।
প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী, প্রতিটি সাধারণ বীমা কোম্পানিকে অবশ্যই বিদ্যমান প্রিমিয়াম ট্যারিফ ও সময়ে সময়ে কর্তৃপক্ষ কর্তৃক জারিকৃত প্রিমিয়াম ট্যারিফ যথাযথভাবে প্রতিপালন করতে হবে।
প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়েছে, সাধারণ বীমা পলিসি বাতিলের ক্ষেত্রে বীমা আইন অনুযায়ী বীমা গ্রহীতাকে ফেরতযোগ্য প্রিািময়ামের অর্থ ক্রসড চেক বা পে-অর্ডারের মাধ্যমে পরিশোধ করতে হবে ও বীমাগ্রহীতার কাছ থেকে এর যথাযথ প্রাপ্তি স্বীকার গ্রহণ করতে হবে। এ ধরনের ফেরতযোগ্য অর্থ কোনোভাবেই এজেন্ট বা ব্রোকারের হিসাবে প্রদান করা যাবে না।
এ প্রসঙ্গে আইডিআরএ সদস্য বোরহান উদ্দীন আহমেদ ‘দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন’-কে বলেন, ‘পুনঃবীমা প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা আনতে আমরা এ নির্দেশনা জারি করেছি। শিগগিরই পুনঃবীমা সংক্রান্ত একটি পূর্নাঙ্গ নীতিমালা তৈরি করা হবে।’
জানা যায়, এবারই প্রথমবারের মধ্যে বিদেশে পুনঃবীমা সংক্রান্ত নীতিমালা তৈরি করতে যাচ্ছে আইডিআরএ। এরই মধ্যে এ সংক্রান্ত একটি খসড়া তৈরি করেছে নিয়ন্ত্রণ সংস্থাটি। খসড়া নীতিমালা অনুযায়ী. প্রতি বছর পুনঃবীমা প্রিমিয়াম বাবদ কত টাকা বিদেশে যাচ্ছে এর হিসাব দিতে হবে রাষ্ট্রায়ত্ত সাধারণ বীমা কর্পোরেশন ও বেসরকারি সাধারণ বীমা কোম্পানিগুলোকে। বিদেশে অর্থ প্রেরণের বিষয়টি অনুমোদনের পাশাপাশি প্রতি তিন মাস অন্তর অন্তর আইডিআরএ বরাবর এ হিসাব দিতে হবে। বিশ্বের ১শ’টি দেশের পুনঃবীমা সংক্রান্ত নিয়ম-কানুন পর্যালোচনা করে খসড়া নীতিমালাটি তৈরি করা হয়েছে বলে ‘আইডিআরএ’ সূত্রে জানা যায়।
জানা গেছে, বর্তমানে কোনো নীতিমালা ছাড়াই এসবিসি ও বেসরকারি খাত মিলিয়ে পুনঃবীমা প্রিমিয়াম বাবদ প্রতি বছর দুই থেকে আড়াই হাজার কোটি টাকা বিদেশে পাঠানো হচ্ছে। এ সংক্রান্ত কোনো রেকর্ডও সংরক্ষণ করে না আইডিআরএ বা বাংলাদেশ ব্যাংক। এমতাবস্থায় পুনঃবীমার আড়ালে অর্থ পাচার প্রতিরোধে এ ধরনের উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।
খসড়া নীতিমালায় বলা হয়েছে, এখন থেকে সাধারণ বীমা কর্পোরেশন (এসবিসি) ও বেসরকারি বীমা কোম্পানি উভয়কেই পুনঃবীমা ব্যবসার ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন আইডিআরএ-তে দাখিল করতে হবে। এছাড়া পুনঃবীমা প্রিমিয়াম বাবদ যে পরিমাণ অর্থই বিদেশে পাঠানো হোক না কেন, নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ থেকে এর অনুমোদন নিতে হবে। পাশাপাশি এ সংক্রান্ত রেকর্ড সংরক্ষণ করবে বাংলাদেশ ব্যাংক। এছাড়াও পুনঃবীমা সংক্রান্ত কাজে কোম্পানির কর্মকর্তাদের বিদেশ ভ্রমণের তথ্য ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বরাবর দাখিল করতে হবে।
খসড়া নীতিমালা অনুযায়ী, বিদেশি পুনঃবীমাকারী প্রতিষ্ঠানগুলো বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন নিয়ে এদেশে ব্যাংক অ্যাকাউন্ট পরিচালনা করতে পারবে। এছাড়া তাদের বাংলাদেশ শাখার ব্যবসায়িক তথ্য ত্রৈমাসিক ভিত্তিতে আইডিআরএ-তে জমা দিতে হবে।
খসড়ায় উল্লেখ করা হয়েছে, বিধি অনুযায়ী নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ থেকে লাইসেন্স নিয়ে কোনো পুনঃবীমাকারী প্রতিষ্ঠান এ দেশে ব্যবসা করতে পারবে। এক্ষেত্রে তাকে ‘রেজিস্ট্রার অব জয়েন্ট স্টক কোম্পানিজ অ্যান্ড ফার্মস’ (আরজেএসসি)-এর প্রক্রিয়াও অনুসরণ করতে হবে। একই সঙ্গে বিদেশি পুনঃবীমাকারী প্রতিষ্ঠানের শেষ পাঁচ বছরের ব্যবসায়িক তথ্য ও আর্থিক সক্ষমতার সনদ আইডিআরএ বরাবর জমা দিতে হবে। শুধু তাই নয়, বিদেশি পুনঃবীমাকারী প্রতিষ্ঠানের পরিচালক, প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও), হিসাব রক্ষকসহ সংশ্লিষ্ট সব কর্মকর্তার যাবতীয় তথ্য সংরক্ষণ করবে আইডিআরএ। এছাড়াও প্রস্তাবিত পুনঃবীমাকারী প্রতিষ্ঠান বিশ্বের আর কোন্ কোন্ দেশে ব্যবসা পরিচালনা করছে এর একটি তালিকা আইডিআরএ-তে দিতে হবে ।
খসড়ায় পুনঃবীমাকারী প্রতিষ্ঠানের ক্রেডিট রেটিং ও আর্থিক সক্ষমতা বিচার করেই দেশীয় কোম্পানিগুলোকে চুক্তিবদ্ধ হবার নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। এছাড়া দাবি পরিশোধে যে কোনো ধরনের সমস্যা তৈরি হলে পুনঃবীমাকারী প্রতিষ্ঠান ও বীমা কোম্পানি উভয়কেই তা লিখিতভাবে জানাতে হবে নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ বরাবর।
দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৩৩০ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged