editorial

বিদ্যুতের সিস্টেম লস কমানোর ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা

সময়: রবিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৯ ৬:১৪:০১ অপরাহ্ণ


বর্তমান সরকার আমলে দেশের বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থায় অনেক উন্নতি সাধিত হয়েছে। বিশেষ করে দেশের অধিকাংশ এলাকা এখন বিদ্যুৎ বিতরণের আওতায় চলে এসেছে। আগামী কয়েক বছরের মধ্যে দেশের প্রত্যেকটি অঞ্চলকে বিদ্যুৎ বিতরণের আওতায় নিয়ে আসার জন্য সরকার চেষ্টা করছেন। ২০১০-’১১ অর্থবছরে দেশের বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থায় সিস্টেম লসের হার ছিল ১৪ দশমিক ৭০ শতাংশ। সরকারের অব্যাহত চেষ্টার ফলে বর্তমানে সিস্টেম লসের হার ১১ দশমিক ৯৬ শতাংশে নেমে এসেছে। বিদ্যুৎ বিতরণ ব্যবস্থার সঙ্গে যুক্ত প্রত্যেকটি প্রতিষ্ঠানেরই কম বেশি সিস্টেম লস রয়েছে। সিস্টেম লস কোনো অস্বাভাবিক বা বিস্ময়কর ঘটনা নয়। বিশ্বের প্রতিটি দেশেই কম বেশি সিস্টেম লস থাকে। কিন্তু সিস্টেম লসের একটি সহনীয় মাত্রা থাকে। বাংলাদেশে সিস্টেম লসের হার এক সময় সহনীয় মাত্রা অতিক্রম করে গিয়েছিল। বিগত শতাব্দির ৮০’র দশকে সিস্টেম লসের হার ৪৫ শতাংশে উন্নীত হয়েছিল। তখন বিশ্বব্যাংক বিদ্যুৎ খাতের ঋণদান বন্ধ করে দিয়েছিল। বিশ্বব্যাংকের একজন ভাইস প্রেসিডেন্ট বাংলাদেশ সফরকালে বলেছিলেন, বাংলাদেশের বিদ্যুতের সিস্টেম লস অস্বাভাবিক মাত্রায় উন্নীত হয়েছে। তিনি আরো বলেছিলেন, বাংলাদেশ যদি জাতীয় পর্যায়ে সিস্টেম লসের পরিমাণ বা হার যদি সহনীয় পর্যায়ে নামিয়ে আনা যেতো তাহলে যে পরিমাণ অর্থ সাশ্রয় হতো তা দিয়ে প্রতি ৪ বছর অন্তর একটি করে যমুনা সেতু নির্মাণ করা যেতো। পরবর্তী সময়েও বিদ্যুৎ বিতরণে তেমন কোনো উন্নতি হয়নি। এ অবস্থায় ২০০৮ সালে অনুষ্ঠিত জাতীয় নির্বাচনে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতায় আসীন হবার পর বর্তমান আওয়ামী লীগ সরকার বিদ্যুতের উৎপাদন বাড়ানো এবং বিতরণ ব্যবস্থার উন্নয়নের জন্য ব্যাপক পরিকল্পনা গ্রহণ করে। ব্যক্তি খাতে রেন্টাল পাওয়ার প্ল্যান্ট স্থাপনের অনুমতি প্রদান করা হয়। রাষ্ট্রীয় এবং ব্যক্তিপর্যায়ে অব্যাহত প্রচেষ্টার ফলে বিদ্যুৎ উৎপাদন এবং বিতরণ ব্যবস্থার প্রভূত উন্নতি হয়। এখন বিদ্যুতের লোডশেডিং নেই বললেই চলে। আগামীতে দেশের প্রত্যেকটি মানুষের জন্য বিদ্যুৎ নিশ্চিত করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। কিন্তু এখনো সিস্টেম লসের হার কাক্সিক্ষত মাত্রায় নেমে আসেনি। মূলত এ কারণেই বিদ্যুৎ বিভাগ আগামীতে যাতে বিদ্যুতের সিস্টেম লস সিঙ্গেল ডিজিটে নেমে আসে সে ব্যাপারে উদ্যোগ নিয়েছে। আমরা বিদ্যুৎ বিভাগের এ উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। কারণ বিদ্যুৎ এমনই এক উৎপাদন উপকরণ, যা ছাড়া উন্নয়ন কার্যক্রম পরিচালনা আশা যায় না। আমরা আশা করবো বিদ্যুৎ বিভাগের এ উদ্যোগ সফল হবে। সারা দেশের মানুষ বিদ্যুতের আলোয় আলোকিত হয়ে উঠবে।

Share
নিউজটি ৪২১ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged