সূচক কমলেও বেড়েছে লেনদেন

৩২ মাসের মধ্যে সর্বনিম্ন অবস্থানে সূচক

সময়: বুধবার, সেপ্টেম্বর ৪, ২০১৯ ৭:০৮:১৭ অপরাহ্ণ


নিজস্ব প্রতিবেদক : ধারাবাহিকভাবে ৬ কার্যদিবস দরপতনে ডিএসই’র সূচক ৫ হাজারের নিচে নেমে এসেছে। যা গত ৩২ মাসের মধ্য সর্বনিম্ন। আজ ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স অবস্থান করছে ৪৯৮৬.৩৭ পয়েন্টে। এর আগে ২০১৬ সালের ২২ ডিসেম্বর ডিএসই’র সূচক ছিল ৪৯৫৬.৭৩ পয়েন্ট। ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) সপ্তাহের চতুর্থ কার্যদিবসে সূচকের পতনে লেনদেন শেষ হয়েছে। এদিন লেনদেনের শুরুতে কিছুটা উত্থান থাকলেও তার স্থায়িত্ব কম ছিল। পরবর্তীতে সেল প্রেসারে টানা নামতে থাকে সূচক। আজ লেনদেন শেষে সূচকের পাশাপাশি কমেছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ার দর। এছাড়া আজ ডিএসইতে লেনদেন কমেছে ১৯ কোটি ৩১ লাখ ৪০ হাজার টাকা।
বাজার পর্যালোচনায় দেখা যায়, আজ ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ২০.৬৯ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ৪৯৮৬.৩৭ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৮.৩৬ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১১৫৮.৭৮ পয়েন্টে এবং ডিএসই ৩০ সূচক ১০.৭০ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৭৪৮.৪২ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ৩৫১টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বেড়েছে ১৩২টির, কমেছে ১৬৬টির এবং অপরিবর্তিত রয়েছে ৫৩টির। আর দিন শেষে লেনদেন হয়েছে ৩৭৫ কোটি ৫১ লাখ ৩১ হাজার টাকা।
এর আগের কার্যদিবস ডিএসইর ব্রড ইনডেক্স আগের দিনের চেয়ে ২৬.৪৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ৫০০৭ পয়েন্টে। আর ডিএসই শরিয়াহ সূচক ৫ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ১১৬৭ পয়েন্টে এবং ডিএসই ৩০ সূচক ১৫.৮৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করে ১৭৫৯ পয়েন্টে। দিনভর লেনদেন হওয়া ৩৩৯টি কোম্পানি ও মিউচ্যুয়াল ফান্ডের মধ্যে দর বৃদ্ধি পায় ১০৯টির, কমে ১৬৯টির এবং অপরিবর্তিত থাকে ৬১টির। আর দিন শেষে লেনদেন হয় ৩৯৪ কোটি ৮২ লাখ ৭১ হাজার টাকা।
অন্যদিকে, চট্টগ্রাম স্টক এক্সচেঞ্জে (সিএসই) আজও নিম্নমুখী প্রবণতা অব্যাহত ছিল। সূচকের পাশাপাশি কমেছে শেয়ারদর। তবে মোট লেনদেন সামান্যই বেড়েছে।

সূচকের চিত্রে দেখা গেছে, আজ লেনদেনের প্রায় শুরু থেকে সূচকের তীর নিম্নমুখী ছিল। শেষ ঘন্টায় সূচক সামান্য ওপরে ওঠার চেষ্টা করে। কিন্তু দিনশেষে সিএসইর সার্বিক সূচক ৮৮ পয়েন্ট কমে অবস্থান করছে ১৫ হাজার ২১৩ পয়েন্টে। অন্যদিকে সিএসইএক্স সূচক ৫৪ পয়েন্ট কমে ৯ হাজার ২৩৫ পয়েন্টে অবস্থান করেছে।

এদিকে আজ মোট ২৫১টি কোম্পানির লেনদেন হয়েছে। এর মধ্যে দর বেড়েছে ৮৯টির কমেছে ১২৯ টির আর অপরিবর্তিত ছিল ৩৩ কোম্পানির শেয়ার দর। আর দিন শেষে ৫৩ লাখ ২০ হাজার ৫১৩টি শেয়ার ৬ হাজার ১০৯ বার হাত বদল হয়। টাকার অঙ্কে মোট মূল্য ছিল ১৬ কোটি ১৭ লাখ ৪৫ হাজার ৪০৬ টাকা। আগের কার্যদিবসের তুলনায় ১৮ লাখ ২১ হাজার ৮৫৩ টাকা বেশি। আগের কার্যদিবসে (মঙ্গলবার) মোট লেনদেন হয়েছিল ১৫ কোটি ৯৯ লাখ ২৩ হাজার ৫৫৩ টাকা। টপটেন গেইনারের ১০ কোম্পানির মধ্যে শীর্ষে ছিল সি পার্ল। এ কোম্পানির দর বেড়েছে ৯ দশমিক ৮১ শতাংশ। অন্যদিকে দর হারানোর দিক থেকে শীর্ষে ছিল ‘রিলায়েন্স ওয়ান’ দ্যা ফার্স্ট স্কিম অব রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্স মিউচ্যুয়াল ফান্ড। এ ফান্ডের দর কমেছে ৯ দশমিক ৩৭ শতাংশ।

দৈনিক শেয়ারবাজার প্রতিদিন/এসএ/খান

Share
নিউজটি ৪৯৩ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged