editorial

শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ানোর উদ্যোগ নিতে হবে

সময়: বৃহস্পতিবার, জানুয়ারি ২, ২০২০ ১২:১৫:১৬ পূর্বাহ্ণ


দেশের শেয়ারবাজরে বিদেশি বিনিয়োগ কমে যাচ্ছে। নতুন বিনিয়োগ আসা কমে যাবার পাশাপাশি ইতোপূর্বে শেয়ার বাজারে বিনিয়োগ করেছিলেন তারাও তাদের বিনিয়োগ প্রত্যাহার করে নিচ্ছেন বলে পত্রিকান্তরে খবর প্রকাশিত হয়েছে। প্রকাশিত খবরটি আমাদের দেশের শেয়ারবাজারের জন্য উদ্বেগজনক। সাম্প্রতিক সময়ে দেশের শেয়ারবাজারে এক ধরনের অস্থিতিশীলতা এবং দরপতন লক্ষ্য করা যাচ্ছে এর পেছনেও বিদেশি বিনিয়োগকারিদের পুঁজি প্রত্যাহার কোনো না কোনো ভাবে ভূমিকা পালন করছে। কারণ বিদেশি বিনিয়োগকারিরা শেয়ারবাজার থেকে তাদের পুঁজি প্রত্যাহার করে নেয়ার প্রবণতায় স্থানীয় বিনিয়োগকারিদের মধ্যে কিছুটা হলেও শঙ্কা তৈরি করেছে। অনেকেই আতঙ্কিত হয়ে বিনিয়োগের সিদ্ধান্ত গ্রহণ থেকে বিরত থাকছেন। ফলে বাজারে এক ধরনের অস্থিতিশীলতা তৈরি হয়েছে। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, ২০১৮ এবং ২০১৯ সালে বিদেশি বিনিয়োগকারিরা ধারাবাহিকভাবে পুঁজি প্রত্যাহার করে নিয়েছেন। বিদেশি বিনিয়োগকারিরা এই সময় যে নতুন শেয়ার ক্রয় করেছেন তার চেয়ে বেশি পরিমাণ শেয়ার বিক্রি করেছেন। ফলে বিগত ৫ বছরের মধ্যে শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগের পরিমাণ নিম্ন পর্যায়ে চলে এসেছে। শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগকারিদের লেনদেন সার্বিক লেনদেনের মাত্র ৭ শতাংশ হলেও বিদেশি বিনিেেয়াগ শেয়ারবাজারে আস্থার প্রতীক হিসেবে কাজ করে থাকে। ২০১৬ সালে শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগকারিদের লেনদেনের পরিমাণ ছিল ১৭ কোটি ২ লাখ টাকা। পরবর্তী বছর তা বেড়ে দাঁড়ায় ১৯ কোটি ৮৭ লাখ টাকায়। কিন্তু সদ্য সমাপ্ত পঞ্জিকা বছরে শেয়ারবাজারে বিদেশিদের শেয়ার লেনদেনের পরিমাণ নেতিবাচক পর্যায়ে চলে গেছে। বিদেশি বিনিয়োগকারিগণ শেয়ার ক্রয় কমিয়ে দিয়েছেন। এমনকি আগের কেনা শেয়ার বিক্রি করে চলে গেছেন। এই অবস্থায় স্থানীয় বিনিয়োগকারিরা কিছুটা হলেও দ্বিধান্বিত। তারা মনে করছেন, হয়তো নিকট ভবিষ্যতে শেয়ারবাজার ঘুরে দাঁড়ানোর কোনো সম্ভাবনা নেই। তাই যারা স্বল্প সময়ের জন্য বিনিয়োগ করেন তারা আতঙ্কিত হয়ে পড়েছেন।
একটি দেশের অর্থনীতি, বিশেষ করে শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। বিদেশি বিনিয়োগ শুধু যে তারল্য প্রবাহ বৃদ্ধি করে তা নয় একই সঙ্গে সাধারণ বিনিয়োগকারিদের মনে আস্থার ভাব সৃষ্টিতেও সহায়ক ভূমিকা পালন করে। তারা মনে করেন, বিদেশি বিনিয়োগকারিরা কখনো খারাপ সময়ে বিনিয়োগ করবে না। বিদেশিরা যখন বিনিয়োগ করছেন তখন শেয়ারবাজার নিয়ে আতঙ্কিত হবার কিছু নেই। শেয়ারবাজারে বিদেশি বিনিয়োগ কমে যাবার ঘটনায় উদ্বিগ্ন হবার কিছু নেই। তবে কি কারণে বিদেশি বিনিয়োগকারিরা তাদের বিনিয়োগ প্রত্যাহার করে নিচ্ছে সে বিষয়টি খতিয়ে দেখা যেতে পারে। বিদেশি বিনিয়োগকারিরা স্থানীয় শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের ক্ষেত্রে যাতে কোনো ধরনের আস্থার সঙ্কটে না ভোগে তা নিশ্চিত করতে হবে। আগামীতে দেশের অর্থনীতির গতি প্রবাহ আরো বেগবান হবে। সেই অবস্থায় শেয়ারবাজার পুঁজি সংগঠনে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখবে। কাজেই এই অবস্থায় শেয়ারবাজারের প্রতি যাতে বিনিয়োগকারিদের আস্থার সঙ্কট সৃষ্টি না হয় তা নিশ্চিত করতে হবে।

Share
নিউজটি ৩১৩ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged