editorial

বিমান দু’টি ড্রিম লাইনার : প্রত্যাশিত সেবার উন্নয়ন চাই

সময়: সোমবার, ডিসেম্বর ৩০, ২০১৯ ১০:৪০:৫১ পূর্বাহ্ণ


জাতীয় পতাকাবাহী সংস্থা বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স বহরে আরো দু’টি ড্রিম লাইনার যুক্ত হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত শনিবার সকালে হযরত শাহজালার আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিমানের পঞ্চম ও ষষ্ঠ ড্রিম লাইনার উদ্বোধন করেন। নতুন এই বিমান দু’টির নামকরণ করা হয়েছে সোনারতরী এবং অচিন পাখি। ‘সোনারতরী’ এবং ‘অচিন পাখি’ উড়োজাহাজ দু’টি বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্সের বহরে যুক্ত হবার ফলে জাতীয় পতাকাবাহী এ পরিবহন খাতে মোট বিমানের সংখ্যা দাঁড়ালো ১৮টিতে। একই সঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বিমান বন্দরের যাত্রী পরিবহন এবং মালপত্র আনা-নেয়ার সক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষে ২১ হাজার ৩০০ কোটি টাকা ব্যয়ে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরের বহুল প্রতীক্ষিত তৃতীয় টার্মিনালের উদ্বোধন করেন। এ ছাড়া বিশ্বের যে কোনো স্থান থেকে বিমানের টিকিট ক্রয়ের সুবিধাসম্বলিত একটি মোবাইল অ্যাপসও উদ্বোধন করেন। বিমান বাংলাদেশ এয়ার লাইন্সে নতুন দু’টি উড়োজাহাজ যুক্ত হবার ফলে জাতীয় পতাকাবাহী এ পরিবহন ব্যবস্থার সমক্ষতা আরো বৃদ্ধি পাবে। যাত্রীরা আগের চেয়ে তুলনামূলক বেশি সুবিধা ভোগ করতে পারবেন। প্রধানমন্ত্রী বিমান কর্মীদের সেবার মান বাড়ানোর জন্য পরামর্শ দেন।
বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স শুধু একটি পরিবহন ব্যবস্থামাত্র নয় এটি আমাদের গর্ব এবং অহংকারের প্রতীক। স্বাধীনতা অর্জনের পর বিধ্বস্ত প্রায় একটি পরিবহন ব্যবস্থা ছিল বিমান বাংলাদেশ এয়ার লাইন্স। সেই অবস্থা থেকে ধীরে ধীরে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স বিকশিত হতে থাকে। কিন্তু বিগত সময়ে বিমান পরিবহন ব্যবস্থা ছিল অনেকটাই উপেক্ষিত। ফলে এ খাতের সম্ভাবনাকে সঠিকভাবে ব্যবহার করা সম্ভব হয়নি। এ ছাড়া যাত্রী সেবার মানও খুব একটা উন্নত ছিল না। ফলে অনেকেই বাংলাদেশ বিমানে আরোহন এবং ভ্রমণ করতে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করতেন না। বর্তমান সরকার দায়িত্ব গ্রহণের পর বিমান পরিবহন ব্যবস্থাকে আধুনিকায়ন এবং যুগোপযোগী করার জন্য বিভিন্ন পরিকল্পনা গ্রহণ করেন। এরই ফলে বাংলাদেশ বিমান এখন আন্তর্জাতিক মান অর্জন করেছে। বাংলাদেশ বিমান শুধু গতানুগতিক একটি পরিবহন ব্যবস্থা মাত্র নয় এটি হচ্ছে বাংলাদেশের জাতীয় পতাকাবাহী এবং দেশের মর্যাদার প্রতীক। তাই এ পরিবহন ব্যবস্থাকে কোনোভাবেই অবহেলা করা যায় না।
সাম্প্রতিক সময়ে বিমান বাংলাদেশ এর সেবার মান আগের তুলনায় অনেকটাই উন্নত হয়েছে। এ ক্ষেত্রে আরো অনেক কিছু করণীয় আছে। সরকার যেভাবে বিমান পরিবহন খাতের উন্নয়নে কাজ করছেন তাতে আমরা আশাবাদী যে আগামীতে বাংলাদেশ বিমান আন্তর্জাতিক যে কোনো বিমান পরিবহন ব্যবস্থার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে চলতে পারবে এবং দেশের জন্য সম্মান বয়ে আনবে।

Share
নিউজটি ৩৭৫ বার পড়া হয়েছে ।
Tagged